ঢাকা, শনিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৯, ৪ কার্তিক ১৪২৬
sristymultimedia.com

প্রচ্ছদ » জাতীয় » বিস্তারিত


ss-steel-businesshour24

Runner-businesshour24

সম্রাটের বিরুদ্ধে যত অভিযোগ

আপডেট : 2019-10-06 13:50:46
সম্রাটের বিরুদ্ধে যত অভিযোগ

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : চলমান ক্যাসিনো বিরোধী অভিযানে যুবলীগের কয়েকজন নেতা গ্রেফতার হওয়ার পরই, সম্রাটের নাম উঠে আসে। তারই প্রেক্ষিতে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাটকে আটক করেছে র‌্যাব।

ক্যাসিনো বিরোধী অভিযানে সম্রাটের নাম উঠে আসার পর থেকেই গ্রেফতার এড়াতে দৌড়ঝাঁপ শুরু করেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত নিজেকে বাঁচাতে পারলেন না সম্রাট। আটকা পড়লেন র‍্যাবের জালে।

এদিকে ক্যাসিনো ক্যাণ্ডে সম্রাটের নাম প্রকাশের পর, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সম্রাট সর্ম্পকে নানা অভিযোগের সত্যতা পান। গোয়েন্দারা বলছেন, প্রতি রাতে রাজধানীর ১৫টি ক্যাসিনো থেকে ৪০ লাখ টাকা চাঁদা হিসেবে নিতেন ইসমাইল হোসেন সম্রাট।

সদ্য বহিষ্কৃত যুবলীগ ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া ও টেন্ডার কিং জিকে শামীমের সমস্ত অবৈধ আয়ের ভাগ দিতে হত সম্রাটকে।

আবার মতিঝিল, ফকিরাপুল, পল্টন, কাকরাইল, বাড্ডা এলকায় অপরাধ জগতের একক আধিপত্য তৈরি করে চাঁদাবাজি করতেন। অন্যদিকে সদ্য আটক হওয়া ঢাকার শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসান আহমেদের সঙ্গে মিলে ঢাকার অপরাধ জগত নিয়ন্ত্রণ করতেন বলেও অভিযোগ রয়েছে।

অভিযোগ আছে, তার নিজ অফিসে কাকরাইলে রাজমণি সিনেমা হলের উল্টোপাশে, জুয়া খেলা হয়। সেখানে থেকে কেউ জিতে ফিরতে পারতেন না। জোরপূর্বক টাকা রেখে দিতেন সম্রাটের সহযোগীরা।

এমনকি স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী তাকে ইঙ্গিত করে বলেছেন, যুবলীগ ঢাকা মহানগরের এক নেতা যা ইচ্ছে তাই করে বেড়াচ্ছে। চাঁদাবাজি করছে। দিনের বেলাতেই প্রকাশ্যে অস্ত্র উঁচিয়ে চলাচল করে। সদলবলে অস্ত্র নিয়ে ঘোরে। এসব বন্ধ করতে হবে।

যারা অস্ত্রবাজি করে, যারা ক্যাডার পোষে, তারা সাবধান হয়ে যান, এসব বন্ধ করুন। তা না হলে যেভাবে জঙ্গি দমন করা হয়েছে, একইভাবে তাদেরও দমন করা হবে।

বিজনেস আওয়ার/০৬ অক্টোবর, ২০১৯/এ

পাঠকের মতামত: