ঢাকা, শনিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৯, ৪ কার্তিক ১৪২৬
sristymultimedia.com

প্রচ্ছদ » জাতীয় » বিস্তারিত


ss-steel-businesshour24

Runner-businesshour24

আবরার হত্যার নতুন ভিডিও ফুটেজ

আপডেট : 2019-10-09 08:09:28
আবরার হত্যার নতুন ভিডিও ফুটেজ


বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যার ঘটনায় শেরেবাংলা হলের সিসিটিভি ক্যামেরার ১৪ মিনিট ৪৩ সেকেন্ডের একটি নতুন ভিডিও ফুটেজ প্রকাশ করেছেন শিক্ষার্থীরা।

মঙ্গলবার (৮ অক্টোবর) রাতে ভিডিও ফুটেজটি তারা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে শেয়ার করলে ভিডিওটি মুহূর্তের মধ্যে ভাইরাল হয়।

এর আগে সোমবার (৭ অক্টোবর) রাতে ক্যাম্পাসে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের অবরুদ্ধ করে এই ভিডিওটি সংগ্রহ করেছিলেন শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ ছিল, মূল অপরাধীদের আড়াল করতে সিসিটিভি ফুটেজ গায়েব করে আংশিক ফুটেজ প্রকাশ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

শিক্ষার্থীদের প্রকাশিত এ ভিডিওতে দেখা যায়, আবরার ফাহাদকে ছাত্রলীগের একদল কর্মী রাত ৮ টা ১৩ মিনিটে ডেকে দোতলায় নিয়ে যান। ছাত্রলীগ কর্মীদের সঙ্গে আবরারকে বেশ স্বাভাবিক ভঙ্গিতে হেঁটে যেতে দেখা যায়।

এরপর রাত ১ টা ১৪ মিনিটে তিনজন তাকে ধরাধরি করে একটি কক্ষে নিয়ে যান। তাদের পিছনে আরও দুইজনকে হেঁটে আসতে দেখা যায়। ১টা ১৪ মিনিট থেকে আড়াইটা পর্যন্ত ছাত্রলীগের কয়েকজনকে করিডোরে নিজেদের মধ্যে কথা বলতে দেখা যায়।

রাত আড়াইটার পর আবরারকে নিচতলায় নামানো হয়। সিঁড়িতে তাকে কিছুক্ষণ রেখে পরবর্তীতে চাদর মোড়ানো অবস্থায় একটি স্ট্রেচারে তোলা হয়। এরপর চিকিৎসক আসেন।

এ সময় সেখানে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিরাপত্তা রক্ষীও উপস্থিত ছিলেন। রাত সাড়ে তিনটার দিকে হলের প্রভোস্ট ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র কল্যাণ পরিচালক সেখানে উপস্থিত হন।

তারা স্ট্রেচারে রাখা আবরারের মরদেহ চাদর সরিয়ে দেখেন। তাদের সঙ্গে ছাত্রলীগের বুয়েট শাখার সাধারণ সম্পাদক মেহেদি হাসান রাসেলকে কথা বলতে দেখা যায়।

আবরারকে পেটানোর ঘটনায় সঙ্গে যারা জড়িত ছিলেন তাদের নামসহ চিহ্নিত করে ১৫ মিনিটের সিসিটিভি ভিডিও ফুটেজ প্রকাশ করেন শিক্ষার্থীরা।

উল্লেখ্য, রোববার দিবাগত রাত তিনটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শের-ই-বাংলা হলের একতলা থেকে দোতলায় ওঠার সিঁড়ির মাঝ থেকে আবরারের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

জানা যায়, রাতে বুয়েটের শের-ই বাংলা হলের ২০১১ নম্বর কক্ষে আবরারকে পেটান বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতা।

আবরার বুয়েটের তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক প্রকৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের (১৭তম ব্যাচ) ছাত্র ছিলেন। তিনি থাকতেন বুয়েটের শেরেবাংলা হলের নিচতলায় ১০১১ নম্বর কক্ষে।

বিজনেস আওয়ার/০৯ অক্টোবর, ২০১৯/এ

পাঠকের মতামত: