স্পোর্টস ডেস্ক : উইন্ডিজ সফরে ভারতীয় দল একদিন আগেই ঘোষণা হয়েছে। টেস্ট, ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টি- তিনটি দলই একযোগে ঘোষণা করেন ভারতীয় জাতীয় দলের প্রধান নির্বাচক এমএসকে প্রাসাদ। যেখানে উপস্থিত ছিলেন অধিনায়ক বিরাট কোহলিও।

এমএসকে প্রাসাদ যখন দল ঘোষণা করছিলেন, তখন সবার আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে ছিল মহেন্দ্র সিং ধোনির নাম। ভারতের সাবেক এই অধিনায়ককে কি ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে দলে রাখা হচ্ছে নাকি বাদ দেয়া হচ্ছে?

এমএসকে প্রাসাদ দল ঘোষণার পরই সবার কাছে স্পষ্ট হয়ে গেলো, টি-টোয়েন্টি কিংবা ওয়ানডে-কোথাও নেই ধোনির নাম। তাহলে কি বিসিসিআই ধোনিকে ছাঁটাই করে ফেললো? আর কি কোনো সুযোগ দেয়া হবে না ধোনিকে?

জ্বল্পনা-কল্পনা শুরু হয়ে যায় সংবাদ সম্মেলনেই। আবার কারো কারো চিন্তা ধোনি কি তাহলে নিজে নিজে অবসরে গেলেন? আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা না করলেও বিসিসিআইয়ের এমন উপেক্ষার শিকার হয়ে কি শেষ পর্যন্ত বিদায় বলবেন?

বিশ্বকাপের আগে থেকেই তো ধোনির অবসর নিয়ে গুঞ্জন। বিশ্বকাপ চলাকালীন সময়েই চারদিকে ছড়িয়ে পড়েছিল, বিশ্বকাপ শেষেই অবসরের ঘোষণাটা দেবেন সাবেক বিশ্বকাপজয়ী এই অধিনায়ক।

বিশ্বকাপের পরও ভারতীয় ক্রিকেটে একমাত্র ইস্যুই ছিল ধোনির অবসর। শেষ পর্যন্ত ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে দলে তার নাম দেখে গুঞ্জন মাথাছাড়া দিয়ে উঠলো। সংবাদ সম্মেলনেই স্বাভাবিকভাবে প্রশ্নের মুখোমুখি হলেন এমএসকে প্রাসাদ।

সেখানেই তিনি জানালেন, আমরা বাদ দিইনি। নিজ ইচ্ছা থেকেই সরে দাঁড়িয়েছেন এমএস ধোনি। তিন নিজেই আমাদেরকে জানিয়েছেন, এই সিরিজে থাকবেন না।

ভারতের প্রধান নির্বাচকই জানিয়েছেন, ধোনি এই সিরিজে খেলবেন কি না তা জানার জন্য তার সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগ করা হয়েছিল। প্রতিবারই জানিয়েছেন, এই সিরিজে তিনি নেই।

বিজনেস আওয়ার/২২ জুলাই, ২০১৯/এ