বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদকঃ এলেঙ্গা থেকে রংপুর পর্যন্ত যতদিন চার লেন না হয় ততদিন উত্তরের পথে ভোগান্তির অবসান হবে না বলে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, এ সমস্যা মোকাবেলায় আপাতত নলকাসহ দুটি ব্রিজের সংস্কার ও সিরিয়াসলি বিকল্প চিন্তা-ভাবনা করছে সরকার।

বুধবার সচিবালয়ে ঈদ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

সেতুমন্ত্রী বলেন, এবারের ঈদুল আজহার ছুটিতে বাড়ি ফেরা মানুষদের, বিশেষ করে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে যাত্রা মোটেই স্বস্তিদায়ক ছিল না। সমস্যাটি আগে ঢাকা-চট্টগ্রামে ছিল। এদিক থেকে এইট লেনে গিয়ে টু লেন ব্রিজে চলাচল, ওদিক থেকে ফোর লেনে এসে টু লেন ব্রিজে লম্বা যানজট সৃষ্টি হচ্ছে। এখানেও সমস্যাটাও ঠিক তাই। এখানে চার লেনে যাত্রাটা যেখানে শেষ হয়, টু লেন শুরু হয় সেখানে।

তিনি বলেন, উত্তরবঙ্গে এমনিতেই গার্মেন্টসকর্মীসহ শেষ দিকে ভিড়টা এমন যে তখন চাপ মোকাবিলা করা খুব কঠিন। যে কারণে দুদিন যাত্রাটা স্বস্তিদায়ক ছিল না, ভোগান্তি হয়েছে। অনেক মানুষ কষ্ট করেছেন। গাড়ি দেরিতে আসার কারণে টার্মিনালেও বহু মানুষের কষ্টের সীমা ছিল না। এজন্য আমি আন্তরিকভাবে দুঃখপ্রকাশ করেছি।

মন্ত্রী বলেন, টাঙ্গাইল থেকে সিরাজগঞ্জের সমস্যাটা অনেক চেষ্টা করেও এড়াতে পারিনি। এখন এলেঙ্গা থেকে রংপুর চারলেনের কাজ শুরু হবে। সেখানে সাসেক প্রজেক্টে চারলেন হবে। ওই চারলেন শেষ পর্যন্ত পঞ্চগড় ও বুড়িমারী পর্যন্ত যাবে। এটার ফিজিবিলিটি এডিবি করেছে।

কাদের বলেন, সবচেয়ে বেশি সমস্যাটি হয় নলকা ব্রিজে। এখানে বেশি টেইলব্যাকের সৃষ্টি হয়। ব্রিজটি যেহেতু অপ্রশস্ত। সেটাকে প্রশস্ত করা এবং আরো একটি ব্রিজ আছে যেটাকে বেইলি ব্রিজ করে আপাতত সমাধান খুঁজতে হবে। ইঞ্জিনিয়াররা এটা পরীক্ষা করে দেখছেন, কীভাবে সেখানে দুর্ভোগ এড়ানো যায় সে ব্যাপারে আমরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। তাতে বোধহয় কিছু ফল পাবো, পেতে শুরু করবো।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমি আশা করি, আমাদের ওদিকে আরেকটু অপেক্ষা করতে হবে। তবে আপাতত চার লেন হওয়ার আগ পর্যন্ত আরো ঈদ আছে, আরো প্রেসার আছে। এই পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য আপাতত কিছু ব্যবস্থা করার চিন্তা-ভাবনা আমরা করছি।

আগামীতে ঈদযাত্রায় সড়ক যেন আরো নির্বিঘ্ন ও ভোগান্তিমুক্ত হয় সেই উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে বলেও জানান সড়ক মন্ত্রী

বিজনেস আওয়ার/১৪ আগস্ট,২০১৯/আরআই