বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : গতবছরের ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনকে ভোট ডাকাতির একবছর পূর্ণ হয়েছে উল্লেখ করে সোমবার (৩০ ডিসেম্বর) কালোদিবস পালন করছে বাম গণতান্ত্রিক জোট। এরই অংশ হিসেবে দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে সমাবেশ শেষে একটি মিছিল নিয়ে তারা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় অভিমুখে যাত্রা করেন।

এ যাত্রায় বাধা দিলে পুলিশের সঙ্গে তাদের সংঘর্ষ হয়। এতে ৮ পুলিশ সদস্যসহ অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন। তাদের ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

আহত ৮ পুলিশ সদস্যের মধ্যে ৬ জনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তারা হলেন—এএসআই জিয়াউর রহমান, এএসআই আব্দুল মালেক, পুলিশ সদস্য রফিকুল ইসলাম, আশিক, মনরঞ্জন ও ফয়সাল। আহত বাম নেতাকর্মীদের মধ্যে যাদের নাম জানা গেছে তারা হলেন—লিপি আক্তার, আরিফ, সুমিত, সজীব, রাশেদ, তমা, উজ্জ্বল, রিমি, জোনায়েদ সাকি, সাইফুল হক, নাঈম, ইরফান।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বাম গণতান্ত্রিক জোটের মিছিলটিতে বাধা দিতে প্রথমে পুলিশ কদম ফোয়ারার সামনে ব্যারিকেড সৃষ্টি করে। এই ব্যারিকেড ভেঙে সামনের দিকে অগ্রসর হন জোটের নেতাকর্মীরা। তবে মৎস্য ভবনের সামনে দেওয়া ব্যারিকেড তারা ভাঙতে পারেননি। এ সময় ব্যারিকেড উপেক্ষা করে যাওয়ার চেষ্টা করেন নেতাকর্মীরা। তখন নেতাকর্মীরা পুলিশের সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন। একপর্যায়ে পুলিশ লাঠিচার্জ শুরু করলে সংঘর্ষ শুরু হয়।

ঢামেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন গণংসহতি আন্দোলনের সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি বলেন, আমাদের কর্মসূচিতে পুলিশ অতর্কিত হামলা চালিয়েছে। এতে আমার মাথা ফেটে গেছে। অনেকে আহত হয়েছেন। বেশ ক’জনকে ঢামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

পুলিশের রমনা বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) সাজ্জাদুর রহমান বলেন, বাম জোটের নেতাকর্মীদের থামাতে পুলিশ ব্যারিকেড দেয়। তারা সেই ব্যারিকেড ভেঙে এগোতে চাইলে পুলিশ বাধা দেয়। তখন জোটে নেতাকর্মীরা পুলিশের ওপর হামলা করে। এতে একাধিক পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। পরে পুলিশ বাম জোটের নেতাকর্মীদের রাস্তা থেকে সরিয়ে দেয়। ঘটনাস্থল থেকে পাঁচজনকে আটক করা হয়েছে।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ বাচ্চু মিয়া বলেন, মৎস্য ভবনে বামজোট কর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়। সেখান থেকে কয়েকজন পুলিশ সদস্য আহত হয়ে ঢাকা মেডিক্যালে ভর্তি হয়েছেন। তাছাড়া ১০-১৫ জন বাম জোট নেতাকর্মীও মেডিক্যালের জরুরি বিভাগে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

বিজনেস আওয়ার/৩০ ডিসেম্বর, ২০১৯/এ