বিজনেস আওয়ার প্রতিদেবক : দীর্ঘ প্রায় এক বছর পতনের মধ্যে থাকা শেয়ারবাজারকে ইতিবাচক প্রবণতায় ফেরাতে সাম্প্রতিক সময়ে বেশ কিছু সুখবর এসেছে বিনিয়োগকারীদের জন্য। বাজার উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেও কিছু দিক নির্দেশনা দিয়েছেন নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের সাথে বৈঠক করে। যার ইতিবাচক প্রভাব শেয়ারবাজারে পড়তে শুরু করেছে।

জানা গেছে, গত ১৬ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর সাথে তার কার্যালয়ে একটি আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় একটি গতিশীল ও শক্তিশালী শেয়ারবাজারের জন্য কয়েকটি নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। ১৪ জানুয়ারি বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স এসোসিয়েমনের (বিএমবিএ) সঙ্গে অর্থমন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের বৈঠক হয়। ওই বৈঠকের পর আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সিনিয়র সচিব আসাদুল ইসলামী শেয়ারবাজারে তারল্য সংকট নিরসনে সরকারি ৪ ব্যাংককে বিনিয়োগের নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলে জানান। এছাড়া শেয়ারবাজারে টেলিযোগাযোগ খাতের গ্রামীণফোনে প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) পদে প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে ইয়াসির আজমানকে নিয়োগ দিয়েছে টেলিনর কর্তৃপক্ষ।

জানা গেছে, গত ১৬ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর সাথে বৈঠক করে বিএসইসি। বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেয়ারবাজারকে বিকশিত করার লক্ষ্যে স্বল্প ও দীর্ঘ মেয়াদী কর্মসূচির বিষয়ে কয়েকটি নির্দেশনা দিয়েছেন। নির্দেশনাগুলোর মধ্যে রয়েছে - শেয়ারবাজারে ব্যাংক ও ব্যাংক বহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠানের অংশগ্রহণ বৃদ্ধি করা; মার্চেন্ট ব্যাংকার ও প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের জন্য কতিপয় সহজ শর্তে ঋণ সুবিধার ব্যবস্থা করা; আইসিবি’র বিনিয়োগ সক্ষমতা বৃদ্ধিকরণ; বিদেশী বিনিয়োগ আকৃষ্ট করা ও দেশীয় বাজারে আস্থা সৃষ্টি করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ এবং বাজারে মানসম্পন্ন আইপিও বৃদ্ধির লক্ষ্যে বহুজাতিক ও সরকারি মালিকানাধীন লাভজনক কোম্পানিসমূহকে তালিকাভুক্তকরণের উদ্যোগ গ্রহণ করা। এ বিষয়ে সরকারের উচ্চ পর্যায় যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। এছাড়াও পর্যায়ক্রমে দীর্ঘমেয়াদি সমস্যা সমূহ চিহ্নিত করে সে বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়া হবে মর্মে সভায় আলোচনা হয়।

বিএমবিএর সাথে গত ১৪ জানুয়ারি বৈঠক পর অর্থমন্ত্রণালয় থেকে শেয়ারবাজারের তারল্য সংকট নিরসনে সরকারি ৪ ব্যাংককে বিনিয়োগের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ওই নির্দেশনার পর সোনালী, জনতা, অগ্রণী ও রূপালী ব্যাংক শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ শুরু করেছে। গত ১৬ জানুয়ারি সোনালী ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সরকারি ৪ বাণিজ্যিক ব্যাংকের পারস্পরিক সহযোগিতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ত্রৈমাসিক বৈঠকে বিনিয়োগের তথ্য জানানো হয়েছে।

সরকারি টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) সাথে গ্রামীণফোনের দ্বন্দ্বের মধ্যেই টেলিনর কর্তৃপক্ষ সংস্থাটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে (সিইও) প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে ইয়াসির আজমানকে নিয়োগ দিয়েছে। তিনি আগামী ১ ফেব্রুয়ারি থেকে তার দায়িত্ব পালন শুরু করবেন। গ্রামীণফোনে বাংলাদেশী ইয়াসির আজমানকে সিইও নিয়োগের ফলে বিটিআরসি সাথে গ্রামীণফোনের দ্বন্দ্বের অবসান হবে এমনটা মনে করছেন বিনিয়োগকারীরা। যা তাদের মধ্যে বাজারের ভবিষ্যৎ নিয়ে ইতিবাচক মনোভাব তৈরি হচ্ছে।

বিজনেস আওয়ার/১৯ জানুয়ারি, ২০২০/আরএ