ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মানসিক চাপ থেকে মুক্তির উপায়

  • পোস্ট হয়েছে : ০৬:১৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২৩
  • 30

বিজনেস আওয়ার ডেস্ক : বর্তমানে কমবেশি সবাই মানসিক চাপে ভোগেন। ব্যক্তিগত জীবন ও কর্মজীবন নানা কারণেই তৈরি হয় মানসিক চাপ বা স্ট্রেস। আর এই মানসিক চাপ তৈরি করে হতাশা, যা ধীরে ধীরে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত করে ফেলে একজন হাসিখুশি মানুষকেও।

তবে মানসিক চাপ তৈরি হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই তা থেকে বেরিয়ে আসার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিলে সমস্যা প্রকট হয় না। আর এক্ষেত্রে সবচেয়ে আগে প্রয়োজন চাপ কাটিয়ে উঠতে নিজের ইচ্ছেশক্তি ও চেষ্টা। কীভাবে কাটাবেন মানসিক চাপ? জেনে নিন কিছু সহজ ও কার্যকরী উপায়-

গান শুনুন

মনকে প্রশান্ত করার খুব দারুণ একটা পদ্ধতি গান শোনা। নিজের ব্যক্তিত্ব অনুযায়ী প্রিয় গান শুনুন। মাঝে মধ্যে আপনিও গুনগুন করে উঠুন। অনেকটাই প্রশান্তি আসবে মনে।

মেডিটেশন

মনকে শান্ত ও নিয়ন্ত্রণে রাখার একটি দারুণ উপায় মেডিটেশন। প্রতিদিন নিয়ম করে নির্দিষ্ট সময়ে মেডিটেশন করুন। প্রয়োজনে মেডিটেশনের জন্য ব্যবহার করুন মনকে প্রশান্ত করার মতো মেডিটেশন মিউজিক।

প্রিয়জনের সঙ্গে কথা বলুন

প্রিয়জনের সঙ্গে কথা বললে নিজেকে খুব হালকা বোধ করবেন। কাছের কোনো মানুষের সঙ্গে আলাপ করুন আপনার সমস্যা নিয়ে কিংবা অনেকদিন খোঁজ না নিতে পারা বন্ধুটিকে ফোন করে কিছুক্ষণ আড্ডা দিন।

নিজের সঙ্গে পরামর্শ করুন

মানসিক চাপ তৈরি হওয়ার কারণ নিয়ে নিজেই নিজের সঙ্গে পরামর্শ করুন। কেন এমনটা হয়েছে, কীভাবে সমস্যাটির সমাধান করা যায়- তা নিজেকেই প্রশ্ন করুন। মনে রাখবেন আপনার সমস্যার সমাধান আপনিই সবচেয়ে ভালো করতে পারেন।

মন খুলে হাসুন

হাসি মানসিক চাপ কমাতে দারুণভাবে সাহায্য করে। মন খুলে হাসুন। এজন্য বন্ধুদের সঙ্গে সময় কাটাতে পারেন। আবার মজার সিনেমা দেখেও প্রাণখুলে হাসতে পারেন।

চা পান করুন

চা বা কফি জাতীয় পানীয় স্নায়ুচাপ কমায় এমনকি শারীরিক ও মানসিক প্রশান্তি দেয়। তাই মানসিকভাবে বিপর্যস্ত থাকার সময়টাতে চা বা কফি পান করে দেখতেই পারেন।

ঘুমান

বিষণ্ণতার কারণে অনেকেই ঠিকমতো ঘুমাতে পারেন না বা ঘুমান না। তবে এটা ঠিক নয়, ঘুম আপনার মানসিক চাপ কমাতে সাহায্য করে। তাই পর্যাপ্ত ঘুম আপনার জন্য অত্যন্ত প্রয়োজন।

বিজনেস আওয়ার/২৪ সেপ্টেম্বর,২০২৩/এসএস

ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার মতামত জানান:
ট্যাগ :

আপনার মতামত লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার মেইলে তথ্য জমা করুন

মানসিক চাপ থেকে মুক্তির উপায়

পোস্ট হয়েছে : ০৬:১৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২৩

বিজনেস আওয়ার ডেস্ক : বর্তমানে কমবেশি সবাই মানসিক চাপে ভোগেন। ব্যক্তিগত জীবন ও কর্মজীবন নানা কারণেই তৈরি হয় মানসিক চাপ বা স্ট্রেস। আর এই মানসিক চাপ তৈরি করে হতাশা, যা ধীরে ধীরে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত করে ফেলে একজন হাসিখুশি মানুষকেও।

তবে মানসিক চাপ তৈরি হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই তা থেকে বেরিয়ে আসার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিলে সমস্যা প্রকট হয় না। আর এক্ষেত্রে সবচেয়ে আগে প্রয়োজন চাপ কাটিয়ে উঠতে নিজের ইচ্ছেশক্তি ও চেষ্টা। কীভাবে কাটাবেন মানসিক চাপ? জেনে নিন কিছু সহজ ও কার্যকরী উপায়-

গান শুনুন

মনকে প্রশান্ত করার খুব দারুণ একটা পদ্ধতি গান শোনা। নিজের ব্যক্তিত্ব অনুযায়ী প্রিয় গান শুনুন। মাঝে মধ্যে আপনিও গুনগুন করে উঠুন। অনেকটাই প্রশান্তি আসবে মনে।

মেডিটেশন

মনকে শান্ত ও নিয়ন্ত্রণে রাখার একটি দারুণ উপায় মেডিটেশন। প্রতিদিন নিয়ম করে নির্দিষ্ট সময়ে মেডিটেশন করুন। প্রয়োজনে মেডিটেশনের জন্য ব্যবহার করুন মনকে প্রশান্ত করার মতো মেডিটেশন মিউজিক।

প্রিয়জনের সঙ্গে কথা বলুন

প্রিয়জনের সঙ্গে কথা বললে নিজেকে খুব হালকা বোধ করবেন। কাছের কোনো মানুষের সঙ্গে আলাপ করুন আপনার সমস্যা নিয়ে কিংবা অনেকদিন খোঁজ না নিতে পারা বন্ধুটিকে ফোন করে কিছুক্ষণ আড্ডা দিন।

নিজের সঙ্গে পরামর্শ করুন

মানসিক চাপ তৈরি হওয়ার কারণ নিয়ে নিজেই নিজের সঙ্গে পরামর্শ করুন। কেন এমনটা হয়েছে, কীভাবে সমস্যাটির সমাধান করা যায়- তা নিজেকেই প্রশ্ন করুন। মনে রাখবেন আপনার সমস্যার সমাধান আপনিই সবচেয়ে ভালো করতে পারেন।

মন খুলে হাসুন

হাসি মানসিক চাপ কমাতে দারুণভাবে সাহায্য করে। মন খুলে হাসুন। এজন্য বন্ধুদের সঙ্গে সময় কাটাতে পারেন। আবার মজার সিনেমা দেখেও প্রাণখুলে হাসতে পারেন।

চা পান করুন

চা বা কফি জাতীয় পানীয় স্নায়ুচাপ কমায় এমনকি শারীরিক ও মানসিক প্রশান্তি দেয়। তাই মানসিকভাবে বিপর্যস্ত থাকার সময়টাতে চা বা কফি পান করে দেখতেই পারেন।

ঘুমান

বিষণ্ণতার কারণে অনেকেই ঠিকমতো ঘুমাতে পারেন না বা ঘুমান না। তবে এটা ঠিক নয়, ঘুম আপনার মানসিক চাপ কমাতে সাহায্য করে। তাই পর্যাপ্ত ঘুম আপনার জন্য অত্যন্ত প্রয়োজন।

বিজনেস আওয়ার/২৪ সেপ্টেম্বর,২০২৩/এসএস

ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার মতামত জানান: