ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ভোটে জিততে ভরসা ফকির বাবার ‘জুতোর বাড়ি’!

  • পোস্ট হয়েছে : ০১:২২ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৯ নভেম্বর ২০২৩
  • 12

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: কথায় আছে, জুতো মেরে গরু দান। তবে এখানে ঠিক গরু নয়, জুতো মেরে ভোটে জেতানো হচ্ছে, এমনটা বলা যেতে পারে। সম্প্রতি ভারতের মধ্যপ্রদেশের বিধানসভার নির্বাচনকে ঘিরে এক প্রার্থীর একটি ভাইরাল হওয়া ভিডিওতেই মিলেছে সেই জবাব। যেখানে কংগ্রেসের প্রার্থী হওয়া পারাস সাখলেচাকে ভোটে জয়ী হতে জুতোর মার খেতে দেখা গিয়েছে।

শনিবার (১৮ নভেম্বর) ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি জানিয়েছে, সাখলেচা এর আগে ২০১৩ ও ২০১৮ সালে মধ্যপ্রদেশের বিধানসভা নির্বাচনে দাঁড়িয়েছেন। কিন্তু জয়ী হতে পারেনি। এজন্য এবার তিনি জয়ী হতে বৃহস্পতিবার (১৬ নভেম্বর) ওই ফকির বাবার কাছে নতুন জুতা নিয়ে দোয়া চাইতে যান।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে দেখা যায়, নতুন জুতা বাবার কাছে দেয়ার পর তা দিয়ে সাখলেচাকে মারতে শুরু করেন ফকির। একবার পিঠে, একবার গালে, এমনকি কংগ্রেস নেতার মাথায় পর্যন্ত জুতো দিয়ে মারছিলেন ওই ফকির। অথচ একবারের জন্য প্রতিবাদ করেননি কংগ্রেস নেতা। জুতার বাড়ি খেয়েও সাখলেচাকে হাসতেও দেখা যায়।

নির্বাচনে যেন তারই জয় হয়, এই কামনা করে লাগাতার জুতো দিয়ে মার খেয়ে গেলেন তিনি। ঘটনার ভিডিও ঘিরে হাসির রোল উঠেছে নেটদুনিয়ায়। কেউ কেউ আবার ওই নেতাকে বাহবাও দিয়েছেন। তবে জেতার জন্য কেউ যে এমন কিছুও করতে পারে তা অবাক করেছে গোটা নেটদুনিয়াকেই।

ওই বাবা একজন ফকির। স্থানীয়রা তাকে বাবা বলে ডাকেন। অনেকে তার কাছ থেকে দোয়া নিতে যান।

এ বিষয়ে সাখলেচা বলেন, তিনি একজন বিখ্যাত ফকির বাবা, সবাই তাকে বাবা বলেই ডাকেন। মানুষজন তাকে ভালোবেসে লুঙ্গি চপ্পল দান করেন। অনেকেই মনে করেন তার আধ্যাত্মিক ক্ষমতা আছে। আর এই ক্ষমতা বলে তিনি অশুভ শক্তিতে দূর করতে পারেন।

প্রসঙ্গত, শুক্রবার (১৭ নভেম্বর) মধ্যপ্রদেশের বিধানসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এ নির্বাচন প্রায় ৭৬.২২ শতাংশ ভোট পড়ে। আগামী ৩ ডিসেম্বর ভোটের ফলাফল প্রকাশ করা হবে।

বিজনেস আওয়ার/এএইচএ

ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার মতামত জানান:
ট্যাগ :

আপনার মতামত লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার মেইলে তথ্য জমা করুন

ভোটে জিততে ভরসা ফকির বাবার ‘জুতোর বাড়ি’!

পোস্ট হয়েছে : ০১:২২ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৯ নভেম্বর ২০২৩

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: কথায় আছে, জুতো মেরে গরু দান। তবে এখানে ঠিক গরু নয়, জুতো মেরে ভোটে জেতানো হচ্ছে, এমনটা বলা যেতে পারে। সম্প্রতি ভারতের মধ্যপ্রদেশের বিধানসভার নির্বাচনকে ঘিরে এক প্রার্থীর একটি ভাইরাল হওয়া ভিডিওতেই মিলেছে সেই জবাব। যেখানে কংগ্রেসের প্রার্থী হওয়া পারাস সাখলেচাকে ভোটে জয়ী হতে জুতোর মার খেতে দেখা গিয়েছে।

শনিবার (১৮ নভেম্বর) ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি জানিয়েছে, সাখলেচা এর আগে ২০১৩ ও ২০১৮ সালে মধ্যপ্রদেশের বিধানসভা নির্বাচনে দাঁড়িয়েছেন। কিন্তু জয়ী হতে পারেনি। এজন্য এবার তিনি জয়ী হতে বৃহস্পতিবার (১৬ নভেম্বর) ওই ফকির বাবার কাছে নতুন জুতা নিয়ে দোয়া চাইতে যান।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে দেখা যায়, নতুন জুতা বাবার কাছে দেয়ার পর তা দিয়ে সাখলেচাকে মারতে শুরু করেন ফকির। একবার পিঠে, একবার গালে, এমনকি কংগ্রেস নেতার মাথায় পর্যন্ত জুতো দিয়ে মারছিলেন ওই ফকির। অথচ একবারের জন্য প্রতিবাদ করেননি কংগ্রেস নেতা। জুতার বাড়ি খেয়েও সাখলেচাকে হাসতেও দেখা যায়।

নির্বাচনে যেন তারই জয় হয়, এই কামনা করে লাগাতার জুতো দিয়ে মার খেয়ে গেলেন তিনি। ঘটনার ভিডিও ঘিরে হাসির রোল উঠেছে নেটদুনিয়ায়। কেউ কেউ আবার ওই নেতাকে বাহবাও দিয়েছেন। তবে জেতার জন্য কেউ যে এমন কিছুও করতে পারে তা অবাক করেছে গোটা নেটদুনিয়াকেই।

ওই বাবা একজন ফকির। স্থানীয়রা তাকে বাবা বলে ডাকেন। অনেকে তার কাছ থেকে দোয়া নিতে যান।

এ বিষয়ে সাখলেচা বলেন, তিনি একজন বিখ্যাত ফকির বাবা, সবাই তাকে বাবা বলেই ডাকেন। মানুষজন তাকে ভালোবেসে লুঙ্গি চপ্পল দান করেন। অনেকেই মনে করেন তার আধ্যাত্মিক ক্ষমতা আছে। আর এই ক্ষমতা বলে তিনি অশুভ শক্তিতে দূর করতে পারেন।

প্রসঙ্গত, শুক্রবার (১৭ নভেম্বর) মধ্যপ্রদেশের বিধানসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এ নির্বাচন প্রায় ৭৬.২২ শতাংশ ভোট পড়ে। আগামী ৩ ডিসেম্বর ভোটের ফলাফল প্রকাশ করা হবে।

বিজনেস আওয়ার/এএইচএ

ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার মতামত জানান: