1. [email protected] : anjuman : anjuman
  2. [email protected] : bikash halder : bikash halder
  3. [email protected] : Admin : Admin
  4. [email protected] : Nayan Babu : Nayan Babu
মধ্যরাতে ছাত্রলীগ নেতাদের উচ্চশব্দে গান, নিষেধ করায় শিক্ষার্থীকে মারধর
বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৩:২২ অপরাহ্ন

মধ্যরাতে ছাত্রলীগ নেতাদের উচ্চশব্দে গান, নিষেধ করায় শিক্ষার্থীকে মারধর

  • পোস্ট হয়েছে : বৃহস্পতিবার, ৩০ নভেম্বর, ২০২৩
print sharing button

বিজনেস আওয়ার ডেস্ক: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) আবাসিক হলে মধ্যরাতে উচ্চশব্দে গান বাজাতে নিষেধ করায় সাংবাদিক ও শিক্ষার্থীকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের নিকট প্রতিবেদন জমা দিয়েছে তদন্ত কমিটি।

বুধবার (২৯ নভেম্বর) বিকেলে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কমিটির আহ্বায়ক শহীদ হবিবুর রহমান হলের আবাসিক শিক্ষক ড. গৌতম দত্ত। তিনি জানান, অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে তদন্ত কমিটি গঠিত হয়েছে এবং তদন্ত সাপেক্ষে আমরা প্রতিবেদন জমা দিয়েছি।

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অধ্যাপক আব্দুস সালাম জানান, অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে একটি তদন্ত প্রতিবেদন পেয়েছি এবং এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্টদের অবহিত করা হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত ২৬ নভেম্বর প্রথম প্রহরে (রাত দেড়টা) বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ হবিবুর রহমান হলের ২১৬ নম্বর কক্ষে উচ্চশব্দে গানবাজনা, চিৎকার ও লাফালাফি করছিলেন হল ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি আল আমিন আকাশ ও তার অনুসারী ইমরান ও সম্রাট। আওয়াজ প্রকট হওয়ায় আশপাশের রুমে ঘুমাতে না পেরে ওপর তলার ৩১৫ নম্বর কক্ষ থেকে নিচে আসেন দর্শন বিভাগের শিক্ষার্থী শাহাদত ও আইন বিভাগের শিক্ষার্থী মঞ্জুরুল ইসলাম। তখন আকাশকে দেখতে পেয়ে গান কোথায় হচ্ছে জানতে চাইলে চটে যান এই ছাত্রলীগ নেতা এবং উভয়ের সঙ্গে তর্কে জড়ান তিনি। এর মধ্যে কক্ষ থেকে বের হন ইমরান ও সম্রাট এবং তর্কাতর্কির একপর্যায়ে শাহাদতকে থাপ্পড় দেন ইমরান। আকাশ ও সম্রাট তাকে টানাটানি শুরু করেন। তখন দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকার বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি রায়হান ইসলাম উভয়পক্ষকে থামানোর চেষ্টা করেন। তিনি এই হলের হলের আবাসিক শিক্ষার্থী এবং অভিযুক্ত ইমরান ও সম্রাটের পাশের কক্ষে (২১৭) থাকেন। ঘটনার একপর্যায়ে রায়হানকেও মারধর করেন ইমরান ও সম্রাটসহ আরবি বিভাগের শিক্ষার্থী আমির হামজা, নাজিম ও অন্যান্যরা। এ ঘটনার বিচার চেয়ে সেদিনই বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে পৃথক দুটি অভিযোগপত্র দেন ভুক্তভোগীরা।

হল সূত্রে জানা গেছে, আধিপত্য বিস্তার করতে কক্ষ দখলে নিয়ে আবাসিক হলে অবৈধভাবে শিক্ষার্থী রাখেন ছাত্রলীগ নেতা আকাশ। তিনি হলের ২০৫ নম্বর কক্ষের আবাসিক শিক্ষার্থী হলেও পরে কক্ষ পরিবর্তন করে ২১১ নম্বর কক্ষে যান। এই কক্ষের আবাসিক ছিলেন রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের ২০১৮-১৯ সেশনের রকি মণ্ডল এবং পরিসংখ্যান বিভাগের কিরণ রবি দাস। পরে কিরণ দাস ২০৫ ও রকি ২০৬ নম্বর কক্ষে গেলে ২১১ নম্বর কক্ষ একাই দখলে নিয়ে কয়েক বছর ধরে অবস্থান করছেন ছাত্রলীগ নেতা আকাশ। এছাড়া প্রভাব খাটিয়ে ২০৮ নম্বর কক্ষও দখলে নিয়ে তার অনুসারী আমির হামজা ও নাজিমকে রাখেন তিনি। তারা কেউ ওই হলের আবাসিক শিক্ষার্থী নয়। আমির হামজা শহীদ শামসুজ্জোহা হল এবং নাজিম নবাব আব্দুল লতিফ হলের আবাসিক শিক্ষার্থী।

এদিকে সিট ফাঁকা না থাকায় অনেক অ্যালোট পাওয়া শিক্ষার্থী হলে উঠতে না পেরে ভোগান্তিতে রয়েছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিক বিভাগের শিক্ষার্থী ইমন হাসান জানান, প্রায় গত দুইমাস আগে হলে আবাসিকতা পেলেও সিট ফাঁকা না থাকায় হলে উঠতে পারছি না। কবে সিট ফাঁকা হবে সেটাও সুনির্দিষ্টভাবে জানা যাচ্ছে না। তবে মাসে মাসে সিট ভাড়া দিতে হচ্ছে।

শহীদ শামসুজ্জোহা হলের আবাসিক শিক্ষার্থী হয়েও অন্য হলে থাকার কারণ জানতে চাইলে আমির হামজা বলেন, তিনি শহীদ শামসুজ্জোহা হলে এখনো ওঠেননি। তবে নিজের আর্থিক সমস্যার কারণে শহীদ হবিবুর রহমান হলে নিজ বিভাগের এক ভাইয়ের কক্ষে অতিথি হিসেবে অবস্থান করছেন। হল প্রাধ্যক্ষ তাকে বের হওয়ার নির্দেশনা দিলে তিনি বের হয়ে যাবেন।

নাজিম বলেন, তিনি নবাব আব্দুল লতিফ হলে উঠেছিলেন। কিন্তু হল শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা তার কাছে অর্থ দাবি করায় তিনি তার বন্ধু হামজার পরামর্শক্রমে হবিবুর রহমান হলে এসে আপাতত থাকছেন।

এ ব্যাপারে ছাত্রলীগ নেতা আকাশ জানান, আমার রুমে আমিসহ আরেকজন থাকি, তবে সে কম থাকে। ২০৮ নম্বর রুমে তার অনুসারীদের বিষয়ে তিনি বলেন, তারা এই হলের না হলেও ওই রুমটি জিহাদের নামে আছে। তারা গেস্ট হিসেবে সেখানে এখন থাকছে। এ বিষয়টি নিয়ে স্যারের সঙ্গে কথা বলেছি আমরা।

হলে সিট দখল ও অন্য হলের শিক্ষার্থী থাকার ব্যাপারে জানতে চাইলে প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক শরিফুল ইসলাম জানান, আমি এই হলে অবস্থানরত অন্য হলের শিক্ষার্থীদের বের হয়ে যেতে এর আগে নোটিশ দিয়েছিলাম। এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সহযোগিতা পেলে খুব শিগগিরই অভিযান পরিচালনা করব। ২০৮ নম্বর কক্ষে অবস্থানরত শিক্ষার্থীদের নিয়ে দুয়েকদিনের মধ্যে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। অন্য হলের কাউকে হলে থাকার অনুমতি দেওয়া হয়নি।

বিজনেস আওয়ার/এএইচএ

ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার মতামত জানান:

শেয়ার দিয়ে সবাইকে দেখার সুযোগ করে দিন

এ বিভাগের আরো সংবাদ

হঠাৎ সৌদি সফরে জেলেনস্কি

  • ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪