1. [email protected] : anjuman : anjuman
  2. [email protected] : user : user
  3. [email protected] : Admin : Admin
  4. [email protected] : Nayan Babu : Nayan Babu
স্বাস্থ্য খাতে প্রধানমন্ত্রী জিরো টলারেন্স ঘোষণা : স্বাস্থ্যমন্ত্রী
শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:৫১ অপরাহ্ন

স্বাস্থ্য খাতে প্রধানমন্ত্রী জিরো টলারেন্স ঘোষণা : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

  • পোস্ট হয়েছে : সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪
print sharing button

বিজনেস আওয়ার প্রতিনিধি: ভুল চিকিৎসা ও চিকিৎসায় গাফিলতির ঘটনা ঘটলে প্রধানমন্ত্রী জিরো টলারেন্স দেখাতে বলেছেন বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী সামন্ত লাল সেন।

তিনি বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে বলছেন, তোমাকে আমি জিরো টলারেন্স বলে দিলাম। কোনো ভুল চিকিৎসা, কোনো গাফিলতি যদি হয়, তাহলে অবশ্যই তাঁর বিরুদ্ধে অ্যাকশন নিবা।’

সোমবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে কুমুদিনী হাসপাতাল পরিদর্শনে এসে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এ কথা বলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

মানুষের চিকিৎসাসেবা পেতে যেন বিড়ম্বনায় পড়তে না হয়, সেই লক্ষ্যে কাজ করছেন বলে জানান তিনি।

ডা. সামন্ত লাল সেন বলেন, ‘আমার প্রথম লক্ষ্যই হচ্ছে প্রান্তিক জনগোষ্ঠী। আমি যেন চিকিৎসা ব্যবস্থাটা সারা বাংলাদেশে গ্রামেগঞ্জে ছড়িয়ে দিতে পারি। তার উদ্দেশ্য একটাই, আমি যদি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও জেলা হাসপাতালগুলোকে স্বাবলম্বী করতে পারি, তাহলে রোগীরা ঢাকা, চট্টগ্রামসহ বড় বড় শহরে ভিড় করবে না।

তাতে হাসপাতালের পরিবেশ ভালো হবে এবং সাধারণ মানুষ তাঁদের গ্রামে বসেই চিকিৎসা পাবেন।’
মন্ত্রী বলেন, ‘আমি মন্ত্রী হবো, এটা আমি কখনও ভাবিনি। মন্ত্রী হয়েছি দেড় মাস হয়েছে। কাজ শুরু করছি।

অনেক কিছু দেখতে পাচ্ছি। আমি একদম গ্রাম থেকে উঠে আসছি। আমার জীবন শুরু হয় বানিয়াচং উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে। সেখানে মেডিকেল অফিসার ছিলাম। আমি সেখান থেকে বেরিয়ে আসছি।

এখনকার মত উন্নত ছিলো না।’

সারা জীবন হাসপাতালে কাজ করেছেন উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘আমি জানি, একজন গরিব মানুষ ঢাকা শহরে এলে কী বিড়ম্বনায় পড়ে, সেটা আমার থেকে ভালো কেউ জানেন না।’

বাংলাদেশের সব চিকিৎসক খারাপ নন, ভালো চিকিৎসকও আছেন উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘আমি চিকিৎসক ও রোগীদের সুরক্ষা দেব। চিকিৎসকেরা গ্রামে কেন থাকতে চান না, তা দেখতে হবে। চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলতে হবে। চিকিৎসকদের নিরাপত্তা গ্রামে কতটুকু আছে, তা-ও গুরুত্বপূর্ণ। আমি যদি চিকিৎসককে গ্রামে সুরক্ষা দিতে পারি, তাহলে তাঁরা অবশ্যই গ্রামে থাকবেন।’

মন্ত্রী সোমবার সকাল সাড়ে ১০টায় কুমুদিনী কমপ্লেক্সে পৌঁছালে কুমুদিনী ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রাজীব প্রসাদ সাহা তাঁকে ফুল দিয়ে স্বাগত জানান। কুমুদিনী লাইব্রেরিতে চা বিরতির পর মন্ত্রী কুমুদিনী হাসপাতাল, নার্সিং স্কুল ও কলেজ হোস্টেল, কুমুদিনী মেডিকেল কলেজ ঘুরে দেখেন। তিনি হাসপাতালের নার্সিং কলেজ মিলনায়তনে প্রামাণ্যচিত্র উপভোগ শেষে নার্সিং ছাত্রাবাসের মাঠে নার্সিং স্কুল ও কলেজের শিক্ষার্থীদের প্যারেড পরিদর্শন করেন। সেখানে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটির বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন।

পরে মির্জা হলে আলোচনা সভার মধ্য দিয়ে কুমুদিনী হাসপাতালে নবনির্মিত প্যালিয়েটিভ কেয়ার সার্ভিস সেন্টারের (জীবন সীমিতকারী রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের দেখাশোনা, কষ্টের প্রশমন ও জীবনের কঠিন সময় অতিক্রমকারী ব্যক্তিদের সহায়তা প্রদান) উদ্বোধন করেন। এ সময় প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান অধ্যাপক নিজাম উদ্দিন, কুমুদিনী ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের পরিচালক (শিক্ষা) ভাষাসৈনিক প্রতিভা মুৎসুদ্দি, পরিচালক শ্রীমতি সাহা ও শম্পা সাহা, মির্জাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাকিলা বিনতে মতিন, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মো. ফরিদুল ইসলাম, বেক্সিমকো গ্রুপের নির্বাহী পরিচালক আশিষ রায় চৌধুরী, মির্জাপুর অফিসার্স ইনচার্জ (ওসি) রেজাউল করিম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

মন্ত্রী কুমুদিনী মেডিকেল কলেজ পরিদর্শনের পর দানবীর রণদাপ্রসাদ সাহার মির্জাপুর গ্রামের বাড়ি ঘুরে দেখেন। সেখানে মধ্যাহ্নভোজ শেষে বিকেল সাড়ে ৪টায় ভারতেশ্বরী হোমস পরিদর্শনে যান। সেখানে মন্ত্রী ছাত্রীদের মনোজ্ঞ ডিসপ্লে উপভোগ করেন।

বিজনেস আওয়ার/এএইচএ

ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার মতামত জানান:

শেয়ার দিয়ে সবাইকে দেখার সুযোগ করে দিন

এ বিভাগের আরো সংবাদ