ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আশা জাগিয়ে আবারও পতন, আতঙ্কে বিনিয়োগকারীরা

  • পোস্ট হয়েছে : ০৪:৪২ অপরাহ্ন, সোমবার, ১ এপ্রিল ২০২৪
  • 34

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক: দীর্ঘ এক মাসের বেশি সময় ধারাবাহিক পতনের পর গেল সপ্তাহের বুধবার ও বৃহস্পতিবার দেশের শেয়ারবাজার ঘুরে দাঁড়িয়েছিল। প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ৬৮৫ পয়েন্ট খোয়া যাওয়ার পর ওই দুই দিনে সূচক উদ্ধার হয়েছিল ৬৭ পয়েন্ট।

আজ রোববার (০১ এপ্রিল) একদিনেই সূচক উধাও হয়ে গেছে ৬৮ পয়েন্টের বেশি। পাশাপাশি ওই দুই দিন বাজার ইতিবাচক থাকার কারণে বিনিয়োগকারীদের মনে যতোটা আশা তৈরি করেছিল, আজ এক দিনেই তা ম্লান করে হয়ে গেছে।

তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যায়, গত ১১ ফেব্রুয়ারি ডিএসইর প্রধান সূচক ছিল ৬ হাজার ৪৪৭ পয়েন্ট। এরপর ২৯ কর্মদিবসের মাথায় সূচক ৬৮৫ পয়েন্ট হারিয়ে দাঁড়ায় ৫ হাজার ৭৬২ পয়েন্টে। এই ২৯ কর্মদিবসের মধ্যে মাত্র ৪ কর্মদিবস সূচক ইতিবাচক ছিল। বাকি ২৫ কর্মদিবসই সূচক পতনের বৃত্তে আটকে ছিল।

এরপর গত বুধবার ও বৃহস্পতিবার সূচক ৬৭ পয়েন্ট বৃদ্ধি পাওয়ায় বিনিয়োগকারীদের মনে কিছুটা আশার সঞ্চার হয়েছিল। তারা নতুন করে আশা বাঁধতে শুরু করেছিল। কিন্তু আজ এক দিনের পতনের ঝড়ে তাদের সব আশা ধুলিস্যাৎ হয়ে গেছে। আবারও অজানা আতঙ্কে পাড়ি জমাল তারা।

বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পতনের চাপে শেয়ারবাজারের বিনিয়োগকারীরা প্রতিদিন নিঃস্ব হয়ে যাচ্ছে, আর নিয়ন্ত্রক সংস্থার কর্তাব্যক্তিরা নতুন নতুন আইপিও ও বন্ড ইস্যু করার কাজে মত্ত। বাজার ইতিবাচক করার জন্য যেসব বাস্তবভিত্তিক উদ্যোগ প্রয়োজন, সেসব উদ্যোগ নেই বলে বাজার সংশ্লিষ্টদের অভিযোগ।

সোমবারের বাজার পর্যালোচনা

আজ সোমবার (০১ এপ্রিল) ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৬৮.৩২ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ৫ হাজার ৭৬১ পয়েন্টে। অন্য দুই সূচকের মধ্যে ডিএসই শরীয়াহ সূচক ১৪.৬৬ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১ হাজার ২৫১ পয়েন্টে এবং ডিএসই-৩০ সূচক ১৩.৯৬ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ২ হাজার ০৭ পয়েন্টে।

আজ ডিএসইতে ৪৬৮ কোটি ৮২ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। আগের কর্মদিবসে লেনদেন হয়েছিল ৪৬৭ কোটি টাকার। আগের দিনের চেয়ে লেনদেন বেড়েছে ৫৫ কোটি ৯২ লাখ টাকা।

আজ ডিএসইতে ৩৯৭টি প্রতিষ্ঠানের ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৪৭টির, কমেছে ৩১৫টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৫টির।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) আজ ৮ কোটি ১৬ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ১১ কোটি ৯২ লাখ ২১ হাজার টাকার শেয়ার ও ইউনিট।

আজ সিএসইতে ২১৬টি প্রতিষ্ঠান লেনদেনে অংশ নিয়েছে। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৬২টির, কমেছে ১৩৬টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৮টি প্রতিষ্ঠানের।

আগের দিন সিএসইতে ২১১টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। যার মধ্যে দর বেড়েছিল ১২৩টির, কমেছিল ৬৬টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ২২টি প্রতিষ্ঠানের।

বিজনেস আওয়ার/০১ এপ্রিল/ এ এইচ

ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার মতামত জানান:
ট্যাগ :

আপনার মতামত লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার মেইলে তথ্য জমা করুন

আশা জাগিয়ে আবারও পতন, আতঙ্কে বিনিয়োগকারীরা

পোস্ট হয়েছে : ০৪:৪২ অপরাহ্ন, সোমবার, ১ এপ্রিল ২০২৪

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক: দীর্ঘ এক মাসের বেশি সময় ধারাবাহিক পতনের পর গেল সপ্তাহের বুধবার ও বৃহস্পতিবার দেশের শেয়ারবাজার ঘুরে দাঁড়িয়েছিল। প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ৬৮৫ পয়েন্ট খোয়া যাওয়ার পর ওই দুই দিনে সূচক উদ্ধার হয়েছিল ৬৭ পয়েন্ট।

আজ রোববার (০১ এপ্রিল) একদিনেই সূচক উধাও হয়ে গেছে ৬৮ পয়েন্টের বেশি। পাশাপাশি ওই দুই দিন বাজার ইতিবাচক থাকার কারণে বিনিয়োগকারীদের মনে যতোটা আশা তৈরি করেছিল, আজ এক দিনেই তা ম্লান করে হয়ে গেছে।

তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যায়, গত ১১ ফেব্রুয়ারি ডিএসইর প্রধান সূচক ছিল ৬ হাজার ৪৪৭ পয়েন্ট। এরপর ২৯ কর্মদিবসের মাথায় সূচক ৬৮৫ পয়েন্ট হারিয়ে দাঁড়ায় ৫ হাজার ৭৬২ পয়েন্টে। এই ২৯ কর্মদিবসের মধ্যে মাত্র ৪ কর্মদিবস সূচক ইতিবাচক ছিল। বাকি ২৫ কর্মদিবসই সূচক পতনের বৃত্তে আটকে ছিল।

এরপর গত বুধবার ও বৃহস্পতিবার সূচক ৬৭ পয়েন্ট বৃদ্ধি পাওয়ায় বিনিয়োগকারীদের মনে কিছুটা আশার সঞ্চার হয়েছিল। তারা নতুন করে আশা বাঁধতে শুরু করেছিল। কিন্তু আজ এক দিনের পতনের ঝড়ে তাদের সব আশা ধুলিস্যাৎ হয়ে গেছে। আবারও অজানা আতঙ্কে পাড়ি জমাল তারা।

বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পতনের চাপে শেয়ারবাজারের বিনিয়োগকারীরা প্রতিদিন নিঃস্ব হয়ে যাচ্ছে, আর নিয়ন্ত্রক সংস্থার কর্তাব্যক্তিরা নতুন নতুন আইপিও ও বন্ড ইস্যু করার কাজে মত্ত। বাজার ইতিবাচক করার জন্য যেসব বাস্তবভিত্তিক উদ্যোগ প্রয়োজন, সেসব উদ্যোগ নেই বলে বাজার সংশ্লিষ্টদের অভিযোগ।

সোমবারের বাজার পর্যালোচনা

আজ সোমবার (০১ এপ্রিল) ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৬৮.৩২ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ৫ হাজার ৭৬১ পয়েন্টে। অন্য দুই সূচকের মধ্যে ডিএসই শরীয়াহ সূচক ১৪.৬৬ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১ হাজার ২৫১ পয়েন্টে এবং ডিএসই-৩০ সূচক ১৩.৯৬ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ২ হাজার ০৭ পয়েন্টে।

আজ ডিএসইতে ৪৬৮ কোটি ৮২ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। আগের কর্মদিবসে লেনদেন হয়েছিল ৪৬৭ কোটি টাকার। আগের দিনের চেয়ে লেনদেন বেড়েছে ৫৫ কোটি ৯২ লাখ টাকা।

আজ ডিএসইতে ৩৯৭টি প্রতিষ্ঠানের ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৪৭টির, কমেছে ৩১৫টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৫টির।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) আজ ৮ কোটি ১৬ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ১১ কোটি ৯২ লাখ ২১ হাজার টাকার শেয়ার ও ইউনিট।

আজ সিএসইতে ২১৬টি প্রতিষ্ঠান লেনদেনে অংশ নিয়েছে। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৬২টির, কমেছে ১৩৬টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৮টি প্রতিষ্ঠানের।

আগের দিন সিএসইতে ২১১টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। যার মধ্যে দর বেড়েছিল ১২৩টির, কমেছিল ৬৬টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ২২টি প্রতিষ্ঠানের।

বিজনেস আওয়ার/০১ এপ্রিল/ এ এইচ

ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার মতামত জানান: