ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সিট ফাঁকা ২টা, লড়াইয়ে ৫ দল

  • পোস্ট হয়েছে : ০৪:২১ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৫ মে ২০২৪
  • 30

স্পোর্টস ডেস্ক: লিগ পর্বের শেষ দিকে কঠিন সমীকরণ নিয়ে চলছে আইপিএল। দুটি দল প্লে-অফ নিশ্চিত করেছে এরইমধ্যে- প্রথমে কলকাতা নাইট রাইডার্স ও দ্বিতীয় দল হিসেবে রাজস্থান রয়্যালস। সেরা চারে আর সিট ফাঁকা আছে ২টা।

লিগ পর্বে এখনো বাকি আছে ৬টি ম্যাচ। এসব ম্যাচ শেষেই নিশ্চিত হবে বাকি ২ সিটে আসলে কারা বসতে পারবে। দুই ফাঁকা সিট দখলের লড়াইয়ে আছে ৫ দল- চেন্নাই সুপার কিংস, সানরাইজার্স হায়দারাবাদ, দিল্লি ক্যাপিটালস, লখনৌ সুপার জায়ান্ট ও রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু।

দেখা যাক, প্লে-অফ নিশ্চিতে কার সামনে কেমন সমীকরণ-

চেন্নাই সুপার কিংস

বর্তমানে ১৩ ম্যাচে ১৪ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয়স্থানে আছে চেন্নাই; রানরেট ০.৫২৮। বাকি এক ম্যাচে যদি রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর বিপক্ষে চেন্নাই জিতে যায়, তাহলে প্লে-অফ নিশ্চিত হবে তাদের। আর যদি হেরে যায়, তাহলে চেন্নাইকে তাকিয়ে থাকতে হবে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের দিকে। প্রার্থনা করতে হবে, হায়দরাবাদ যেন তাদের বাকি দুই ম্যাচে হেরে যায় এবং রানরেটেও চেন্নাই থেকে পিছিয়ে থাকে। এই সমীকরণ মিলে গেলে প্লে-অফে যাবে বেঙ্গালুরু ও চেন্নাই।

সানরাইজার্স হায়দরাবাদ

১২ ম্যাচে ১৪ পয়েন্ট; রানরেট ০.৪০৬। বাকি দুই ম্যাচের কোনো একটিতে জয়, এমনকি কোনো এক ম্যাচ পরিত্যক্ত হওয়ার প্রেক্ষিতে ১ পয়েন্ট পেলেও শেষ চার নিশ্চিত হবে হায়দরাবাদের। আর দুটি ম্যাচে হেরে গেলেই শুরু করতে হবে প্রার্থনা। সেক্ষেত্রে হায়দরাবাদ চাইবে, চেন্নাই-বেঙ্গালুরু ম্যাচে যেন চেন্নাই জিতে যায়। চেন্নাই হেরেও গেলে সুযোগ থাকবে হায়দরাবাদের। এটি হলে, রানরেটে হায়দরাবাদ থেকে পিছিয়ে পড়তে হবে চেন্নাইকে।

দিল্লি ক্যাপিটালস

সব ম্যাচ খেলা শেষ। ১৪ ম্যাচে পয়েন্ট ১৪; রানরেট -০.৩৭৭। কোনো ম্যাচ বাকি না থাকায় ইতিমধ্যেই প্রার্থনা শুরু করে দিয়েছে দিল্লি। তবে দিল্লির প্রার্থনা কবুল হওয়ার সম্ভাবনাও একেবারে কম। প্রথমত দিল্লিকে প্রার্থনা করতে হবে, বেঙ্গালুরু-চেন্নাই মধ্যকার ম্যাচে যেন চেন্নাই জিততে পারে। দ্বিতীয়ত, ১৪ পয়েন্ট অর্জন করা হায়দরাবাদ যেন তাদের দুটি ম্যাচেই হেরে যায়। সেটিও আবার বড় ব্যবধানে। দুই ম্যাচ মিলিয়ে ৯৫ রানে হারতে হবে হায়দরাবাদকে। যা কিনা প্রায় অসম্ভব।

রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু

১৩ ম্যাচে ১২ পয়েন্ট; রানরেট ০.৩৮৭। সেরা চারে উঠতে হলে বাকি এক ম্যাচে চেন্নাইকে অবশ্যই হারাতে হবে বেঙ্গালুরুর। এর পাশাপাশি প্রার্থনা করতে হবে হায়দরাবাদ যেন তাদের দুটি ম্যাচেই হেরে যায়।

লখনৌ সুপার জায়ান্ট

১৩ ম্যাচে ১২ পয়েন্ট; -০.৭৮৭। লখনৌর শেষ চারে খেলা অসম্ভব বললেই চলে। বাাকি এক ম্যাচ হাতে থাকায় তাদেরও ১৪ পয়েন্ট পাওয়ার সুযোগ আছে। শেষ ম্যাচটি তারা খেলবে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের বিপক্ষে। তবে লখনৌর রানরেট অনেক কম। সেক্ষেত্রে অলৌকিক কোনো কিছু না হলে বাদ পড়তে হবে লখনৌকে।

উল্লেখ্য, আগেই আসর থেকে বিদায় নিয়েছে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স, গুজরাট টাইটানস ও পাঞ্চাব কিংস।

বিজনেস আওয়ার/১৫ মে/ রানা

ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার মতামত জানান:
ট্যাগ :

আপনার মতামত লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার মেইলে তথ্য জমা করুন

সিট ফাঁকা ২টা, লড়াইয়ে ৫ দল

পোস্ট হয়েছে : ০৪:২১ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৫ মে ২০২৪

স্পোর্টস ডেস্ক: লিগ পর্বের শেষ দিকে কঠিন সমীকরণ নিয়ে চলছে আইপিএল। দুটি দল প্লে-অফ নিশ্চিত করেছে এরইমধ্যে- প্রথমে কলকাতা নাইট রাইডার্স ও দ্বিতীয় দল হিসেবে রাজস্থান রয়্যালস। সেরা চারে আর সিট ফাঁকা আছে ২টা।

লিগ পর্বে এখনো বাকি আছে ৬টি ম্যাচ। এসব ম্যাচ শেষেই নিশ্চিত হবে বাকি ২ সিটে আসলে কারা বসতে পারবে। দুই ফাঁকা সিট দখলের লড়াইয়ে আছে ৫ দল- চেন্নাই সুপার কিংস, সানরাইজার্স হায়দারাবাদ, দিল্লি ক্যাপিটালস, লখনৌ সুপার জায়ান্ট ও রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু।

দেখা যাক, প্লে-অফ নিশ্চিতে কার সামনে কেমন সমীকরণ-

চেন্নাই সুপার কিংস

বর্তমানে ১৩ ম্যাচে ১৪ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয়স্থানে আছে চেন্নাই; রানরেট ০.৫২৮। বাকি এক ম্যাচে যদি রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর বিপক্ষে চেন্নাই জিতে যায়, তাহলে প্লে-অফ নিশ্চিত হবে তাদের। আর যদি হেরে যায়, তাহলে চেন্নাইকে তাকিয়ে থাকতে হবে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের দিকে। প্রার্থনা করতে হবে, হায়দরাবাদ যেন তাদের বাকি দুই ম্যাচে হেরে যায় এবং রানরেটেও চেন্নাই থেকে পিছিয়ে থাকে। এই সমীকরণ মিলে গেলে প্লে-অফে যাবে বেঙ্গালুরু ও চেন্নাই।

সানরাইজার্স হায়দরাবাদ

১২ ম্যাচে ১৪ পয়েন্ট; রানরেট ০.৪০৬। বাকি দুই ম্যাচের কোনো একটিতে জয়, এমনকি কোনো এক ম্যাচ পরিত্যক্ত হওয়ার প্রেক্ষিতে ১ পয়েন্ট পেলেও শেষ চার নিশ্চিত হবে হায়দরাবাদের। আর দুটি ম্যাচে হেরে গেলেই শুরু করতে হবে প্রার্থনা। সেক্ষেত্রে হায়দরাবাদ চাইবে, চেন্নাই-বেঙ্গালুরু ম্যাচে যেন চেন্নাই জিতে যায়। চেন্নাই হেরেও গেলে সুযোগ থাকবে হায়দরাবাদের। এটি হলে, রানরেটে হায়দরাবাদ থেকে পিছিয়ে পড়তে হবে চেন্নাইকে।

দিল্লি ক্যাপিটালস

সব ম্যাচ খেলা শেষ। ১৪ ম্যাচে পয়েন্ট ১৪; রানরেট -০.৩৭৭। কোনো ম্যাচ বাকি না থাকায় ইতিমধ্যেই প্রার্থনা শুরু করে দিয়েছে দিল্লি। তবে দিল্লির প্রার্থনা কবুল হওয়ার সম্ভাবনাও একেবারে কম। প্রথমত দিল্লিকে প্রার্থনা করতে হবে, বেঙ্গালুরু-চেন্নাই মধ্যকার ম্যাচে যেন চেন্নাই জিততে পারে। দ্বিতীয়ত, ১৪ পয়েন্ট অর্জন করা হায়দরাবাদ যেন তাদের দুটি ম্যাচেই হেরে যায়। সেটিও আবার বড় ব্যবধানে। দুই ম্যাচ মিলিয়ে ৯৫ রানে হারতে হবে হায়দরাবাদকে। যা কিনা প্রায় অসম্ভব।

রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু

১৩ ম্যাচে ১২ পয়েন্ট; রানরেট ০.৩৮৭। সেরা চারে উঠতে হলে বাকি এক ম্যাচে চেন্নাইকে অবশ্যই হারাতে হবে বেঙ্গালুরুর। এর পাশাপাশি প্রার্থনা করতে হবে হায়দরাবাদ যেন তাদের দুটি ম্যাচেই হেরে যায়।

লখনৌ সুপার জায়ান্ট

১৩ ম্যাচে ১২ পয়েন্ট; -০.৭৮৭। লখনৌর শেষ চারে খেলা অসম্ভব বললেই চলে। বাাকি এক ম্যাচ হাতে থাকায় তাদেরও ১৪ পয়েন্ট পাওয়ার সুযোগ আছে। শেষ ম্যাচটি তারা খেলবে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের বিপক্ষে। তবে লখনৌর রানরেট অনেক কম। সেক্ষেত্রে অলৌকিক কোনো কিছু না হলে বাদ পড়তে হবে লখনৌকে।

উল্লেখ্য, আগেই আসর থেকে বিদায় নিয়েছে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স, গুজরাট টাইটানস ও পাঞ্চাব কিংস।

বিজনেস আওয়ার/১৫ মে/ রানা

ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার মতামত জানান: