ঢাকা , সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঋণগ্রহীতার যোগ্যতা যাচাইয়ে নতুন সংস্থা হচ্ছে

  • পোস্ট হয়েছে : ১১:৪৮ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৯ মে ২০২৪
  • 79

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক: ব্যাংকখাতে খেলাপি ঋণের পরিমাণ প্রায় দেড় লাখ কোটি টাকার কাছাকাছি। কোনোভাবেই কমানো যাচ্ছে না ব্যাংকখাতের এ বিষফোঁড়া। এ নিয়ে দাতা সংস্থারও চাপ রয়েছে। এবার খেলাপি ঋণ কমাতে ঋণগ্রহীতাদের যোগ্যতা যাচাইয়ে প্রাইভেট ক্রেডিট ব্যুরো (পিসিবি) নামে নতুন সংস্থা তৈরির সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

ব্যাংক ও গ্রাহকের মধ্যে মধ্যস্থতাকারী হিসেবে সংস্থাটি গ্রাহকের সম্পদ ও যোগ্যতা নির্ধারণ করে রেটিং দেবে। যার ভিত্তিতেই গ্রাহক ঋণ পাবেন।

মঙ্গলবার (২৮ মে) বাংলাদেশ ব্যাংকের বোর্ড মিটিংয়ে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সভায় সভাপতিত্ব করেন গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার। উপস্থিত ছিলেন বোর্ড সদস্যসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এক কর্মকর্তা জাগো নিউজকে জানান, ঋণগ্রহীতার যোগ্যতা যাচাইয়ে নতুন সংস্থা (পিসিবি) তৈরির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। একই বোর্ড মিটিংয়ে ডিজিটাল ব্যাংক হিসেবে কার্যক্রম শুরু করতে নগদকে চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া হয়। আরেক ডিজিটাল ব্যাংক প্রাথমিক শর্ত পূরণ করতে না পারায় শর্ত পূরণে আরও সময় পেয়েছে কড়ি। এদিন আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের নতুন সচিবকে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বোর্ড সদস্য হিসেবে নির্বাচিত করা হয়েছে।

ব্যাংকগুলোর ঋণ দেওয়ার ক্ষেত্রে গ্রাহকদের যোগ্যতা নির্ধারণ করবে প্রাইভেট ক্রেডিট ব্যুরো (পিসিবি)। এ কারণেই পিসিবি নামে নতুন প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার সিদ্ধান্ত হয়েছে আজকের বোর্ড সভায়। সংস্থাটি ব্যাংকের ঋণ বিতরণের ক্ষেত্রে সম্পদ ও দায় পরিশোধের হারের ওপর ভিত্তি করে গ্রাহককে রেটিং দেবে। ওই রেটিংয়ের উপর ভিত্তি করে ঋণ বিতরণ করবে ব্যাংক। এটি মূলত ব্যাংক ও গ্রাহকের মধ্যে মধ্যস্বত্ব তৈরি করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এখনো ঋণ বিতরণের আগে বিভিন্ন কোম্পানির মাধ্যমেই গ্রাহক সম্পর্কে তদন্ত ও অন্যান্য কার্যক্রম পরিচালনার দায়িত্ব দিয়ে থাকে ব্যাংক, যার মান নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে।

বোর্ড সভায় নগদকে ডিজিটাল ব্যাংক পরিচালনায় চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়ার ফলে ডিজিটাল ব্যাংক হিসেবে কার্যক্রম শুরু করতে আর বাধা থাকবে না নগদের। আর প্রাথমিক কাজ শেষ করতে না পারায় কড়িকে আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় বেঁধে দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

বিজনেস আওয়ার/২৯ মে/রহমান

ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার মতামত জানান:
ট্যাগ :

আপনার মতামত লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার মেইলে তথ্য জমা করুন

ঋণগ্রহীতার যোগ্যতা যাচাইয়ে নতুন সংস্থা হচ্ছে

পোস্ট হয়েছে : ১১:৪৮ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৯ মে ২০২৪

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক: ব্যাংকখাতে খেলাপি ঋণের পরিমাণ প্রায় দেড় লাখ কোটি টাকার কাছাকাছি। কোনোভাবেই কমানো যাচ্ছে না ব্যাংকখাতের এ বিষফোঁড়া। এ নিয়ে দাতা সংস্থারও চাপ রয়েছে। এবার খেলাপি ঋণ কমাতে ঋণগ্রহীতাদের যোগ্যতা যাচাইয়ে প্রাইভেট ক্রেডিট ব্যুরো (পিসিবি) নামে নতুন সংস্থা তৈরির সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

ব্যাংক ও গ্রাহকের মধ্যে মধ্যস্থতাকারী হিসেবে সংস্থাটি গ্রাহকের সম্পদ ও যোগ্যতা নির্ধারণ করে রেটিং দেবে। যার ভিত্তিতেই গ্রাহক ঋণ পাবেন।

মঙ্গলবার (২৮ মে) বাংলাদেশ ব্যাংকের বোর্ড মিটিংয়ে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সভায় সভাপতিত্ব করেন গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার। উপস্থিত ছিলেন বোর্ড সদস্যসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এক কর্মকর্তা জাগো নিউজকে জানান, ঋণগ্রহীতার যোগ্যতা যাচাইয়ে নতুন সংস্থা (পিসিবি) তৈরির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। একই বোর্ড মিটিংয়ে ডিজিটাল ব্যাংক হিসেবে কার্যক্রম শুরু করতে নগদকে চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া হয়। আরেক ডিজিটাল ব্যাংক প্রাথমিক শর্ত পূরণ করতে না পারায় শর্ত পূরণে আরও সময় পেয়েছে কড়ি। এদিন আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের নতুন সচিবকে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বোর্ড সদস্য হিসেবে নির্বাচিত করা হয়েছে।

ব্যাংকগুলোর ঋণ দেওয়ার ক্ষেত্রে গ্রাহকদের যোগ্যতা নির্ধারণ করবে প্রাইভেট ক্রেডিট ব্যুরো (পিসিবি)। এ কারণেই পিসিবি নামে নতুন প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার সিদ্ধান্ত হয়েছে আজকের বোর্ড সভায়। সংস্থাটি ব্যাংকের ঋণ বিতরণের ক্ষেত্রে সম্পদ ও দায় পরিশোধের হারের ওপর ভিত্তি করে গ্রাহককে রেটিং দেবে। ওই রেটিংয়ের উপর ভিত্তি করে ঋণ বিতরণ করবে ব্যাংক। এটি মূলত ব্যাংক ও গ্রাহকের মধ্যে মধ্যস্বত্ব তৈরি করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এখনো ঋণ বিতরণের আগে বিভিন্ন কোম্পানির মাধ্যমেই গ্রাহক সম্পর্কে তদন্ত ও অন্যান্য কার্যক্রম পরিচালনার দায়িত্ব দিয়ে থাকে ব্যাংক, যার মান নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে।

বোর্ড সভায় নগদকে ডিজিটাল ব্যাংক পরিচালনায় চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়ার ফলে ডিজিটাল ব্যাংক হিসেবে কার্যক্রম শুরু করতে আর বাধা থাকবে না নগদের। আর প্রাথমিক কাজ শেষ করতে না পারায় কড়িকে আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় বেঁধে দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

বিজনেস আওয়ার/২৯ মে/রহমান

ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার মতামত জানান: