ঢাকা , সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিএসইসির চিঠির ভুল অর্থ করেছে ডিএসই-সিএসই!

  • পোস্ট হয়েছে : ০১:১৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১১ জুন ২০২৪
  • 105

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক: পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) এক নির্দেশনা নিয়ে বিব্রতকর পরিস্থিতির জন্ম দিয়েছে দেশের দুই স্টক এক্সচেঞ্জ। রোববার (৯ জুন) ওই নির্দেশনার ভুল অর্থ করে তার সংবাদ প্রকাশ করা হয় স্টক এক্সচেঞ্জ দুটির ওয়ার্কস্টেশন ও ওয়েবসাইটে। তাতে ব্লক মার্কেটে তালিকাভুক্ত ১০টি মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত স্থগিত থাকবে বলে জানানো হয়। তার একদিনের মাথায় আজ (১০ জুন) সকালে ওই স্থগিতাদেশ প্রত্যাহারের কথা জানানো হয়।

বাস্তবে বিএসইসির পক্ষ থেকে পাঠানো চিঠিতে ব্লক মার্কেটে আলোচিত মিউচুয়াল ফান্ডগুলোর ইউনিটের কেনাবেচা স্থগিত রাখতে বলা হয়নি। বলা হয়েছে, ফান্ডগুলোতে থাকা সম্পদ (শেয়ার, বন্ড, ডিবেঞ্চার ও অন্য মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট) যাতে ব্লক মার্কেটে বিক্রি করতে না পারে সে বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে।

সংশ্লিষ্ট পক্ষগুলোর সাথে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।

সূত্র অনুসারে, সম্পদ ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ রেস অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট পরিচালিত ফান্ডগুলোর বিষয়ে তদন্ত করছে বিএসইসি। রেস পরিচালিত ফান্ডগুলোর মধ্যে ১০টি ফান্ড হচ্ছে মেয়াদি মিউচুয়াল ফান্ড (Close-end Mutual Fund), যেগুলো স্টক এক্সচেঞ্জে তালিকাভুক্ত। ফান্ডগুলো হচ্ছে-এবি ব্যাংক ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড, ইবিএল ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড, ইবিএল এনআরবি মিউচুয়াল ফান্ড, এক্সিম ব্যাংক ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড, ফার্স্ট জনতা ব্যাংক মিউচুয়াল ফান্ড, ফার্স্ট বাংলাদেশ মিউচুয়াল ফান্ড, আইএফআইসি ব্যাংক ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড, পপুলার লাইফ ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড, পিএইচপি ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড এবং ট্রাস্ট ব্যাংক ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড।

সম্পদ ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্ঠানটি যাতে তদন্তকালীন সময়ে ব্লক মার্কেটে ফান্ডগুলোর অ্যাসেট বিক্রি করে টাকা সরিয়ে নেওয়ার চেষ্টা না করতে পারে, সে লক্ষ্য বিএসইসি গঠিত তদন্ত কমিটি ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জকে (সিএসই) ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেয়। ওই নির্দেশনারই ভুল অর্থ করে স্টক এক্সচেঞ্জ দুটি। প্রথমে ডিএসইর ওয়বেসাইটে ওই ভুল সংবাদ প্রকাশিত হয়। সম্ভবত তাতে প্রভাবিত হয়ে সিএসইও একই ভুল করে বসে।

উল্লখ, ব্লক মার্কেট হচ্ছে স্টক এক্সচেঞ্জের এমন একটি ব্যবস্থা যেখানে বড় অংকের শেয়ার কেনাবেচা করা যায়। এই মার্কেটে ক্রেতা ও বিক্রেতা নিজেরা শেয়ারের দাম ঠিক করে নিয়ে ক্রয় ও বিক্রয় আদেশ দেয়।

এর আগে ইউনির্ভাসাল ফিন্যান্সিয়াল সলিউশন (ইউএফএস) নামের একটি সম্পদ ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্ঠান গোপনে মিউচুয়াল ফান্ডের সম্পদ বিক্রি করে ফান্ডগুলোর স্পন্সর ও ইউনিটধারীদের কয়েকশ কোটি টাকা নিয়ে দেশ থেকে পালিয়ে গেছে। যাতে এ ধরনের কোনো ঘটনার পুনরাবৃত্তি না হয়, সে লক্ষ্যে রেসের ফান্ডগুলোর সম্পদ ব্লক মার্কেটে বিক্রি করার উপর স্থগিতাদেশ দেওয়া হয়েছে। তদন্ত শেষে এ বিষয়ে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

বিএসইসির নির্দেশনার ভুল অর্থ ও সংবাদ কীভাবে প্রকাশিত হল তা জানতে চাইলে ডিএসইর ভারপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাত্ত্বিক আহমেদ অর্থসূচককে বলেন, বিএসইসির চিঠির আলোকে গতকাল ডিএসইতে ওই খবর প্রকাশিত হয়েছে। পরে বিএসইসি তথ্য সংশোধন করায়, আমরাও সংশোধন করে দিয়েছি।

যোগাযোগ করা হলে এ বিষয়ে সিএসইর ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাইফুর রহমান মজুমদার অর্থসূচককে বলেন, কীভাবে এমন ভুল হয়েছে, আমরা তা খতিয়ে দেখছি।

বিজনেস আওয়ার/১১ জুন/ এ এইচ

ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার মতামত জানান:
ট্যাগ :

আপনার মতামত লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার মেইলে তথ্য জমা করুন

বিএসইসির চিঠির ভুল অর্থ করেছে ডিএসই-সিএসই!

পোস্ট হয়েছে : ০১:১৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১১ জুন ২০২৪

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক: পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) এক নির্দেশনা নিয়ে বিব্রতকর পরিস্থিতির জন্ম দিয়েছে দেশের দুই স্টক এক্সচেঞ্জ। রোববার (৯ জুন) ওই নির্দেশনার ভুল অর্থ করে তার সংবাদ প্রকাশ করা হয় স্টক এক্সচেঞ্জ দুটির ওয়ার্কস্টেশন ও ওয়েবসাইটে। তাতে ব্লক মার্কেটে তালিকাভুক্ত ১০টি মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত স্থগিত থাকবে বলে জানানো হয়। তার একদিনের মাথায় আজ (১০ জুন) সকালে ওই স্থগিতাদেশ প্রত্যাহারের কথা জানানো হয়।

বাস্তবে বিএসইসির পক্ষ থেকে পাঠানো চিঠিতে ব্লক মার্কেটে আলোচিত মিউচুয়াল ফান্ডগুলোর ইউনিটের কেনাবেচা স্থগিত রাখতে বলা হয়নি। বলা হয়েছে, ফান্ডগুলোতে থাকা সম্পদ (শেয়ার, বন্ড, ডিবেঞ্চার ও অন্য মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট) যাতে ব্লক মার্কেটে বিক্রি করতে না পারে সে বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে।

সংশ্লিষ্ট পক্ষগুলোর সাথে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।

সূত্র অনুসারে, সম্পদ ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ রেস অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট পরিচালিত ফান্ডগুলোর বিষয়ে তদন্ত করছে বিএসইসি। রেস পরিচালিত ফান্ডগুলোর মধ্যে ১০টি ফান্ড হচ্ছে মেয়াদি মিউচুয়াল ফান্ড (Close-end Mutual Fund), যেগুলো স্টক এক্সচেঞ্জে তালিকাভুক্ত। ফান্ডগুলো হচ্ছে-এবি ব্যাংক ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড, ইবিএল ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড, ইবিএল এনআরবি মিউচুয়াল ফান্ড, এক্সিম ব্যাংক ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড, ফার্স্ট জনতা ব্যাংক মিউচুয়াল ফান্ড, ফার্স্ট বাংলাদেশ মিউচুয়াল ফান্ড, আইএফআইসি ব্যাংক ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড, পপুলার লাইফ ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড, পিএইচপি ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড এবং ট্রাস্ট ব্যাংক ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড।

সম্পদ ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্ঠানটি যাতে তদন্তকালীন সময়ে ব্লক মার্কেটে ফান্ডগুলোর অ্যাসেট বিক্রি করে টাকা সরিয়ে নেওয়ার চেষ্টা না করতে পারে, সে লক্ষ্য বিএসইসি গঠিত তদন্ত কমিটি ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জকে (সিএসই) ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেয়। ওই নির্দেশনারই ভুল অর্থ করে স্টক এক্সচেঞ্জ দুটি। প্রথমে ডিএসইর ওয়বেসাইটে ওই ভুল সংবাদ প্রকাশিত হয়। সম্ভবত তাতে প্রভাবিত হয়ে সিএসইও একই ভুল করে বসে।

উল্লখ, ব্লক মার্কেট হচ্ছে স্টক এক্সচেঞ্জের এমন একটি ব্যবস্থা যেখানে বড় অংকের শেয়ার কেনাবেচা করা যায়। এই মার্কেটে ক্রেতা ও বিক্রেতা নিজেরা শেয়ারের দাম ঠিক করে নিয়ে ক্রয় ও বিক্রয় আদেশ দেয়।

এর আগে ইউনির্ভাসাল ফিন্যান্সিয়াল সলিউশন (ইউএফএস) নামের একটি সম্পদ ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্ঠান গোপনে মিউচুয়াল ফান্ডের সম্পদ বিক্রি করে ফান্ডগুলোর স্পন্সর ও ইউনিটধারীদের কয়েকশ কোটি টাকা নিয়ে দেশ থেকে পালিয়ে গেছে। যাতে এ ধরনের কোনো ঘটনার পুনরাবৃত্তি না হয়, সে লক্ষ্যে রেসের ফান্ডগুলোর সম্পদ ব্লক মার্কেটে বিক্রি করার উপর স্থগিতাদেশ দেওয়া হয়েছে। তদন্ত শেষে এ বিষয়ে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

বিএসইসির নির্দেশনার ভুল অর্থ ও সংবাদ কীভাবে প্রকাশিত হল তা জানতে চাইলে ডিএসইর ভারপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাত্ত্বিক আহমেদ অর্থসূচককে বলেন, বিএসইসির চিঠির আলোকে গতকাল ডিএসইতে ওই খবর প্রকাশিত হয়েছে। পরে বিএসইসি তথ্য সংশোধন করায়, আমরাও সংশোধন করে দিয়েছি।

যোগাযোগ করা হলে এ বিষয়ে সিএসইর ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাইফুর রহমান মজুমদার অর্থসূচককে বলেন, কীভাবে এমন ভুল হয়েছে, আমরা তা খতিয়ে দেখছি।

বিজনেস আওয়ার/১১ জুন/ এ এইচ

ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার মতামত জানান: