ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

খবরটি একেবারেই মিথ্যা: প্রিন্স মাহমুদ

  • পোস্ট হয়েছে : ০৪:৫৮ অপরাহ্ন, বুধবার, ১০ জুলাই ২০২৪
  • 27

বিনোদন ডেস্ক: বিসিএস এর প্রশ্নফাঁস ইশ্যুতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নানা রকম বিভ্রান্তিমূলক তথ্য ছড়াতে শুরু করেছে। এরই মধ্যে ভাইরাল হয়ে গেছেন পিএসসির চেয়ারম্যানের গাড়িচালক আবেদ আলী। একপর্যায়ে ছড়ানো হচ্ছিল, এই আবেদ আলী ছিলেন চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাদিকের গাড়িচালক। পরে ছড়াতে শুরু করে তিনি ছিলেন ড. জিনাতুন নেসা তাহমিদা বেগমের গাড়িচালক। জিনাতুন নেসা কণ্ঠশিল্পী ও অভিনেতা তাহসান খানের মা। বিভ্রান্তিমূলক এসব তথ্য ছড়ানোয় প্রতিবাদ জানিয়েছেন গীতিকবি ও সুরস্রষ্টা প্রিন্স মাহমুদ।

আজ (১০ জুলাই) বুধবার বিকেলে নিজের ফেসবুক পেজ-এ বিষয়টি নিয়ে পোস্ট করেছেন প্রিন্স মাহমুদ। তিনি লিখেছেন, ‘তাহসানের নামে ছড়ানো খবরটি একেবারেই মিথ্যা, সম্পূর্ণ মিথ্যা। নজর অন্যদিকে সরিয়ে নেওয়ার জন্যই এসব খবর ছড়ানো হচ্ছে। ছোটবেলা থেকে দেখেছি, তাহসানের বাবা-মা দুইজনই অত্যন্ত সৎ মানুষ। সাধারণ সরকারি কর্মকর্তাদের বাচ্চাদের মতো বড় হয়েছে তাহসান। কোনরকম বিলাসিতা দেখিনি। তাহসানের যা অর্জন, সমস্তটাই গানের জন্য। যা হোক, প্রকৃত অসৎদেরকে ধামাচাপা দেওয়ার জন্যই এগুলো ছড়ানো হচ্ছে। এসবের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।’

তাহসান খানের মা জিনাতুন নেসা প্রসঙ্গে প্রিন্স মাহমুদ লিখেছেন, ‘তাহসানের আম্মা জিনাতুননেসা ২০০২-২০০৭ সাল পর্যন্ত পিএসসির চেয়ারম্যান ছিলেন। আর প্রশ্ন ফাঁসের ঘটনা ঘটেছে ২০১২ থেকে, মানে গত একযুগ বা ১২ বছর। তার গাড়ি চালাতো বলেই সে অপরাধী, বিষয়টা কিন্তু এমন নয়। তিনি দায়িত্বে থাকাকালে প্রশ্ন ফাঁস হয়েছিল কি না বা প্রশ্নফাঁসের সময় থেকে তিনি কোনো দায়িত্বে ছিলেন কি না বা জড়িত ছিলেন কি না, সেটা আগে জানতে হবে। তারপর আশা করি আমরা তাকে দোষারোপ করব, যদি তিনি অপরাধী হন বা তার কোন দায় থাকে।’

এ বিষয়ে কথা বলার জন্য যোগাযোগ করা হলে তাহসানকে ফোনে পাওয়া যায়নি।

জানা গেছে, ১৯৯৭ সালের ২ ডিসেম্বর পিএসিতে গাড়িচালক হিসেবে যোগ দেন আবেদ আলী। ২০১৪ সালের এপ্রিলে সহকারী মেইনটেন্যান্স ইঞ্জিনিয়ার পদের লিখিত পরীক্ষায় প্রশ্নফাঁসের অভিযোগে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা হয়। অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তিনি চাকরি হারান। ২০১২ সালের শেষ দিকে পিএসসি চেয়ারম্যানের গাড়িচালক হিসেবে দায়িত্ব পান তিনি। ওই সময় পিএসসির চেয়ারম্যান ছিলেন এ টি আহমেদুল হক চৌধুরী। ২০১৩ সালের ২৪ ডিসেম্বর পিএসসির চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ পান অবসরপ্রাপ্ত সচিব ও সাবেক ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার ইকরাম আহমেদ। তিনি ২০১৬ সালের ১৩ এপ্রিল পর্যন্ত চেয়ারম্যান ছিলেন। ওই সময়ই চাকরি থেকে বরখাস্ত হন আবেদ আলী।

সাম্প্রতিক নানা ইশ্যুতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নিজের অবস্থান পরিস্কার করেন প্রিন্স মাহমুদ। জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমাদের বয়স হয়েছে। কিছু কথা না বললেই নয়। না জেনে বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়ানো ঠিক না।’ প্রিন্স মাহমুদ সম্প্রতি শেষ করেছেন সিয়াম আহমেদ অভিনীত ‘জংলি’ সিনেমার গান। তার সুরে সিনেমার সবগুলো গান তৈরি হচ্ছে। সর্বশেষ শাকিব খান অভিনীত ‘রাজকুমার’ ছবিতে ‘ভালোবাসতে বাসতে বরবাদ হয়ে যাচ্ছি’ ও ‘প্রিয়তমা’ ছবিতে ‘ঈশ্বর’ গান দুটি সুর করেছেন এই জনপ্রিয় সুরস্রষ্টা। বহু কালোক্তীর্ণ গানের কথা ও সুর সৃষ্টি করেছেন তিনি।

বিজনেস আওয়ার/ ১০ জুলাই / রানা

ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার মতামত জানান:
ট্যাগ :

আপনার মতামত লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার মেইলে তথ্য জমা করুন

খবরটি একেবারেই মিথ্যা: প্রিন্স মাহমুদ

পোস্ট হয়েছে : ০৪:৫৮ অপরাহ্ন, বুধবার, ১০ জুলাই ২০২৪

বিনোদন ডেস্ক: বিসিএস এর প্রশ্নফাঁস ইশ্যুতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নানা রকম বিভ্রান্তিমূলক তথ্য ছড়াতে শুরু করেছে। এরই মধ্যে ভাইরাল হয়ে গেছেন পিএসসির চেয়ারম্যানের গাড়িচালক আবেদ আলী। একপর্যায়ে ছড়ানো হচ্ছিল, এই আবেদ আলী ছিলেন চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাদিকের গাড়িচালক। পরে ছড়াতে শুরু করে তিনি ছিলেন ড. জিনাতুন নেসা তাহমিদা বেগমের গাড়িচালক। জিনাতুন নেসা কণ্ঠশিল্পী ও অভিনেতা তাহসান খানের মা। বিভ্রান্তিমূলক এসব তথ্য ছড়ানোয় প্রতিবাদ জানিয়েছেন গীতিকবি ও সুরস্রষ্টা প্রিন্স মাহমুদ।

আজ (১০ জুলাই) বুধবার বিকেলে নিজের ফেসবুক পেজ-এ বিষয়টি নিয়ে পোস্ট করেছেন প্রিন্স মাহমুদ। তিনি লিখেছেন, ‘তাহসানের নামে ছড়ানো খবরটি একেবারেই মিথ্যা, সম্পূর্ণ মিথ্যা। নজর অন্যদিকে সরিয়ে নেওয়ার জন্যই এসব খবর ছড়ানো হচ্ছে। ছোটবেলা থেকে দেখেছি, তাহসানের বাবা-মা দুইজনই অত্যন্ত সৎ মানুষ। সাধারণ সরকারি কর্মকর্তাদের বাচ্চাদের মতো বড় হয়েছে তাহসান। কোনরকম বিলাসিতা দেখিনি। তাহসানের যা অর্জন, সমস্তটাই গানের জন্য। যা হোক, প্রকৃত অসৎদেরকে ধামাচাপা দেওয়ার জন্যই এগুলো ছড়ানো হচ্ছে। এসবের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।’

তাহসান খানের মা জিনাতুন নেসা প্রসঙ্গে প্রিন্স মাহমুদ লিখেছেন, ‘তাহসানের আম্মা জিনাতুননেসা ২০০২-২০০৭ সাল পর্যন্ত পিএসসির চেয়ারম্যান ছিলেন। আর প্রশ্ন ফাঁসের ঘটনা ঘটেছে ২০১২ থেকে, মানে গত একযুগ বা ১২ বছর। তার গাড়ি চালাতো বলেই সে অপরাধী, বিষয়টা কিন্তু এমন নয়। তিনি দায়িত্বে থাকাকালে প্রশ্ন ফাঁস হয়েছিল কি না বা প্রশ্নফাঁসের সময় থেকে তিনি কোনো দায়িত্বে ছিলেন কি না বা জড়িত ছিলেন কি না, সেটা আগে জানতে হবে। তারপর আশা করি আমরা তাকে দোষারোপ করব, যদি তিনি অপরাধী হন বা তার কোন দায় থাকে।’

এ বিষয়ে কথা বলার জন্য যোগাযোগ করা হলে তাহসানকে ফোনে পাওয়া যায়নি।

জানা গেছে, ১৯৯৭ সালের ২ ডিসেম্বর পিএসিতে গাড়িচালক হিসেবে যোগ দেন আবেদ আলী। ২০১৪ সালের এপ্রিলে সহকারী মেইনটেন্যান্স ইঞ্জিনিয়ার পদের লিখিত পরীক্ষায় প্রশ্নফাঁসের অভিযোগে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা হয়। অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তিনি চাকরি হারান। ২০১২ সালের শেষ দিকে পিএসসি চেয়ারম্যানের গাড়িচালক হিসেবে দায়িত্ব পান তিনি। ওই সময় পিএসসির চেয়ারম্যান ছিলেন এ টি আহমেদুল হক চৌধুরী। ২০১৩ সালের ২৪ ডিসেম্বর পিএসসির চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ পান অবসরপ্রাপ্ত সচিব ও সাবেক ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার ইকরাম আহমেদ। তিনি ২০১৬ সালের ১৩ এপ্রিল পর্যন্ত চেয়ারম্যান ছিলেন। ওই সময়ই চাকরি থেকে বরখাস্ত হন আবেদ আলী।

সাম্প্রতিক নানা ইশ্যুতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নিজের অবস্থান পরিস্কার করেন প্রিন্স মাহমুদ। জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমাদের বয়স হয়েছে। কিছু কথা না বললেই নয়। না জেনে বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়ানো ঠিক না।’ প্রিন্স মাহমুদ সম্প্রতি শেষ করেছেন সিয়াম আহমেদ অভিনীত ‘জংলি’ সিনেমার গান। তার সুরে সিনেমার সবগুলো গান তৈরি হচ্ছে। সর্বশেষ শাকিব খান অভিনীত ‘রাজকুমার’ ছবিতে ‘ভালোবাসতে বাসতে বরবাদ হয়ে যাচ্ছি’ ও ‘প্রিয়তমা’ ছবিতে ‘ঈশ্বর’ গান দুটি সুর করেছেন এই জনপ্রিয় সুরস্রষ্টা। বহু কালোক্তীর্ণ গানের কথা ও সুর সৃষ্টি করেছেন তিনি।

বিজনেস আওয়ার/ ১০ জুলাই / রানা

ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার মতামত জানান: