ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

টানা ৫ বছর ধরে ব্যবসায় নিম্নমূখী এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্স

  • পোস্ট হয়েছে : ১১:০০ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৪ জুন ২০২০
  • 29

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : শেয়ারবাজার থেকে অর্থ উত্তোলনের অপেক্ষায় থাকা এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্সের ব্যবসা ভালো যাচ্ছে না। কোম্পানিটির গত ৫ বছর ধরে টানা ব্যবসায় মুনাফা কমেছে। এরই ধারাবাহিকতায় ৫ বছরের ব্যবধানে কোম্পানিটির মুনাফা অর্ধেকে নেমে এসেছে। যা কোম্পানিটির ইক্যুইটি ব্যবহারের তুলনায় মুনাফা অর্জনকে বীমা খাতের অর্ধেকে নামিয়ে এনেছে।

প্রসপেক্টাস অনুযায়ি, গত ৫ বছরে এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্সের আয় এবং মুনাফা বাড়েনি, বরং কমেছে। ৫ বছর আগে ২০১৪ সালে কোম্পানিটির আয় হয়েছিল ৪২ কোটি ৩ লাখ টাকা। যা ২০১৮ সালে নেমে এসেছে ৪০ কোটি ৮৯ লাখ টাকায়। আর কর পূর্ববর্তী ২০১৪ সালের ১১ কোটি ৫৮ লাখ টাকার মুনাফা কমে এসেছে ৭ কোটি ৬৮ লাখ টাকায়।

এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্সের ২০১৪ সালে নিট মুনাফা হয়েছিল ৮ কোটি ৫৭ লাখ ৮৯ হাজার ৭৩৬ টাকা। যা ২০১৫ সালে কমে হয় ৫ কোটি ৬৫ লাখ ৫ হাজার ৩৬০ টাকা। এরপরে ধারাবাহিকভাবে কমে ২০১৬ সালে ৪ কোটি ৯২ লাখ ৬৪ হাজার ৩৩০ টাকা, ২০১৭ সালে ৪ কোটি ৬৭ লাখ ৬৬ হাজার ২২৯ টাকা ও ২০১৮ সালে ৪ কোটি ৩৮ লাখ ৪১ হাজার ৬১০ টাকা মুনাফা হয়েছে। অর্থাৎ ৫ বছরের ব্যবধানে মুনাফা কমেছে ৪ কোটি ১৯ লাখ ৪৮ হাজার ১২৬ টাকা বা ৪৮.৯০ শতাংশ।

আরও পড়ুন…..
তারল্য সংকটের শেয়ারবাজার থেকে অর্থ নিয়ে এফডিআর করবে এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্স

নিট মুনাফায় পতনের ফলে শেয়ারপ্রতি মুনাফাও (ইপিএস) কমেছে ধারাবাহিকভাবে। এ কোম্পানিটির ২০১৪ সালে ইপিএস হয়েছিল ২.৬৪ টাকা। যা ২০১৫ সালে কমে আসে ১.৪৪ টাকায়। যা নিয়মিত কমে ২০১৬ সালে ১.২৬ টাকায়, ২০১৭ সালে ১.২০ টাকায় ও ২০১৮ সালে ইপিএস ১.১২ টাকায় নেমে এসেছে।

এদিকে ২০১৭ সালে বীমা খাতে গড় রিটার্ন অন ইক্যুইটি ছিল ১২.৩০ শতাংশ। যার পরিমাণ এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্সের মাত্র ৬.২৯ শতাংশ। অর্থাৎ বীমা খাতের গড় হিসাবের অর্ধেকে এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্স।

মুনাফার সাথে সাথে এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্সের শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদও (এনএভিপিএস) কমেছে। কোম্পানিটির ২০১৪ সালের ১৯.৫৫ টাকার এনএভিপিএস ২০১৮ সালে নেমে এসেছে ১৮.৭২ টাকায়।

এ বিষয়ে জানতে এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্সের চেয়ারম্যান মো. আব্দুল আওয়ালের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি। এছাড়া ম্যাসেজ দিয়েও কোন জবাব পাওয়া যায়নি।

পরবর্তীতে প্রধান নির্বাহি কর্মকর্তা (সিইও) কেএম সাইদুর রহমান বিজনেস আওয়ারকে বলেন, মুনাফার হার না বাড়লেও একই হারে ব্যবসা করছি। একই হারে মুনাফা অর্জন হয়েছে। ব্যবসারও পতন হয়নি, মুনাফারও পতন হয়নি। উনার এই দাবি যদি সত্য হয়ে থাকে, তাহলে প্রসপেক্টাসে মুনাফা নিয়ে মিথ্যা তথ্য দেওয়া হয়েছে। কারন প্রসপেক্টাস অনুযায়ি, ৫ বছরের ব্যবধানে মুনাফা কমেছে ৪ কোটি ১৯ লাখ ৪৮ হাজার ১২৬ টাকা বা ৪৮.৯০ শতাংশ।

বিজনেস আওয়ার/০৪ জুন, ২০২০/আরএ

ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার মতামত জানান:
ট্যাগ :

One thought on “টানা ৫ বছর ধরে ব্যবসায় নিম্নমূখী এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্স

আপনার মতামত লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার মেইলে তথ্য জমা করুন

টানা ৫ বছর ধরে ব্যবসায় নিম্নমূখী এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্স

পোস্ট হয়েছে : ১১:০০ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৪ জুন ২০২০

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : শেয়ারবাজার থেকে অর্থ উত্তোলনের অপেক্ষায় থাকা এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্সের ব্যবসা ভালো যাচ্ছে না। কোম্পানিটির গত ৫ বছর ধরে টানা ব্যবসায় মুনাফা কমেছে। এরই ধারাবাহিকতায় ৫ বছরের ব্যবধানে কোম্পানিটির মুনাফা অর্ধেকে নেমে এসেছে। যা কোম্পানিটির ইক্যুইটি ব্যবহারের তুলনায় মুনাফা অর্জনকে বীমা খাতের অর্ধেকে নামিয়ে এনেছে।

প্রসপেক্টাস অনুযায়ি, গত ৫ বছরে এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্সের আয় এবং মুনাফা বাড়েনি, বরং কমেছে। ৫ বছর আগে ২০১৪ সালে কোম্পানিটির আয় হয়েছিল ৪২ কোটি ৩ লাখ টাকা। যা ২০১৮ সালে নেমে এসেছে ৪০ কোটি ৮৯ লাখ টাকায়। আর কর পূর্ববর্তী ২০১৪ সালের ১১ কোটি ৫৮ লাখ টাকার মুনাফা কমে এসেছে ৭ কোটি ৬৮ লাখ টাকায়।

এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্সের ২০১৪ সালে নিট মুনাফা হয়েছিল ৮ কোটি ৫৭ লাখ ৮৯ হাজার ৭৩৬ টাকা। যা ২০১৫ সালে কমে হয় ৫ কোটি ৬৫ লাখ ৫ হাজার ৩৬০ টাকা। এরপরে ধারাবাহিকভাবে কমে ২০১৬ সালে ৪ কোটি ৯২ লাখ ৬৪ হাজার ৩৩০ টাকা, ২০১৭ সালে ৪ কোটি ৬৭ লাখ ৬৬ হাজার ২২৯ টাকা ও ২০১৮ সালে ৪ কোটি ৩৮ লাখ ৪১ হাজার ৬১০ টাকা মুনাফা হয়েছে। অর্থাৎ ৫ বছরের ব্যবধানে মুনাফা কমেছে ৪ কোটি ১৯ লাখ ৪৮ হাজার ১২৬ টাকা বা ৪৮.৯০ শতাংশ।

আরও পড়ুন…..
তারল্য সংকটের শেয়ারবাজার থেকে অর্থ নিয়ে এফডিআর করবে এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্স

নিট মুনাফায় পতনের ফলে শেয়ারপ্রতি মুনাফাও (ইপিএস) কমেছে ধারাবাহিকভাবে। এ কোম্পানিটির ২০১৪ সালে ইপিএস হয়েছিল ২.৬৪ টাকা। যা ২০১৫ সালে কমে আসে ১.৪৪ টাকায়। যা নিয়মিত কমে ২০১৬ সালে ১.২৬ টাকায়, ২০১৭ সালে ১.২০ টাকায় ও ২০১৮ সালে ইপিএস ১.১২ টাকায় নেমে এসেছে।

এদিকে ২০১৭ সালে বীমা খাতে গড় রিটার্ন অন ইক্যুইটি ছিল ১২.৩০ শতাংশ। যার পরিমাণ এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্সের মাত্র ৬.২৯ শতাংশ। অর্থাৎ বীমা খাতের গড় হিসাবের অর্ধেকে এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্স।

মুনাফার সাথে সাথে এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্সের শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদও (এনএভিপিএস) কমেছে। কোম্পানিটির ২০১৪ সালের ১৯.৫৫ টাকার এনএভিপিএস ২০১৮ সালে নেমে এসেছে ১৮.৭২ টাকায়।

এ বিষয়ে জানতে এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্সের চেয়ারম্যান মো. আব্দুল আওয়ালের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি। এছাড়া ম্যাসেজ দিয়েও কোন জবাব পাওয়া যায়নি।

পরবর্তীতে প্রধান নির্বাহি কর্মকর্তা (সিইও) কেএম সাইদুর রহমান বিজনেস আওয়ারকে বলেন, মুনাফার হার না বাড়লেও একই হারে ব্যবসা করছি। একই হারে মুনাফা অর্জন হয়েছে। ব্যবসারও পতন হয়নি, মুনাফারও পতন হয়নি। উনার এই দাবি যদি সত্য হয়ে থাকে, তাহলে প্রসপেক্টাসে মুনাফা নিয়ে মিথ্যা তথ্য দেওয়া হয়েছে। কারন প্রসপেক্টাস অনুযায়ি, ৫ বছরের ব্যবধানে মুনাফা কমেছে ৪ কোটি ১৯ লাখ ৪৮ হাজার ১২৬ টাকা বা ৪৮.৯০ শতাংশ।

বিজনেস আওয়ার/০৪ জুন, ২০২০/আরএ

ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার মতামত জানান: