ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

লকডাউনের গুঞ্জনে দাম বেড়েছে নিত্যপণ্যের

  • পোস্ট হয়েছে : ১২:২৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৫ জুন ২০২০
  • 35

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে সরকার জোনভিত্তিক লকডাউনে যাচ্ছে, এমন গুঞ্জনের মধ্যেই রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে একদিনের ব্যবধানে সাতটি নিত্যপণ্যের দাম বেড়েছে।

দেশে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে টানা ৬৬ দিন লকডাউন রাখার পর গত ৩১ মে থেকে বেশিরভাগ বিধিনিধেষ তুলে নেয়া হয়। তবে এরপর প্রতিদিন করোনার সংক্রমণের সংখ্যা বাড়তে থাকায় এলাকা ধরে জোনভিত্তিক পদক্ষেপ নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার।

তবে গত দুদিন ধরে গুঞ্জন ছড়িয়েছে ঢাকার ৪৫ এলাকাকে রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। শিগগির এসব এলাকা লকডাউন করা হবে। এমন গুঞ্জনের পরিপ্রেক্ষিতে চাল, মুরগি, ডাল, আলু কেনার পরিমাণ কিছুটা বেড়েছে। যার ফলে এসব পণ্যের দামও বেড়েছে।

রাজধানীর বিভিন্ন বাজার সুত্রে জানা গেছে, সব থেকে বেশি বেড়েছে বয়লার মুরগির দাম। চলতি সপ্তাহে দফায় দফায় দাম বেড়ে বয়লার মুরগির কেজি আবার ১৭০ টাকায় উঠেছে, যা গত শুক্রবারও ছিল ১৪০ টাকা।

দাম বেড়েছে সব ধরনের চালের। মোটা চালের দাম বেড়ে কেজি ৩৮ থেকে ৪৫ টাকা বিক্রি হচ্ছে, যা দুদিন আগে ছিল ৩৪ থেকে ৩৬ টাকা। মাঝারি মানের চালের দাম বেড়ে হয়েছে ৪৫ থেকে ৫০ টাকা। চিকন চালের দাম বেড়ে কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫৬ থেকে ৬২ টাকা, যা আগে ছিল ৫৪ থেকে ৫৮ টাকার মধ্যে।

দুদিন আগে ২৬ থেকে ২৮ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া আলুর দাম বেড়ে ৩০ টাকা হয়েছে। দেশি রসুনের দাম বেড়ে কেজি আবার ১০০ টাকা ছাড়িয়েছে। কয়েক দফা দাম কমে গত সপ্তাহে দেশি রসুনের কেজি ৮০ থেকে ৯০ টাকা হয়েছিল। এখন তা আবার বেড়ে ১১০ থেকে ১২০ টাকা হয়েছে।

রসুনের সঙ্গে দাম বেড়েছে দেশি পেঁয়াজের। ৪০ টাকা থেকে দেশি পেঁয়াজের দাম বেড়ে এখন ৪৫ থেকে ৫০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। দেশি রসুনের পাশাপাশি দাম বেড়েছে আমদানি করা রসুনেরও। ১২০ থেকে ১৩০ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া আমদানি করা রসুনের দাম বেড়ে ১৪০ থেকে ১৫০ টাকা হয়েছে।

৯৫ থেকে ১০০ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া মাঝারি দানার মসুর ডালের দাম বেড়ে ১০০ থেকে ১১৫ টাকা হয়েছে। গত দুই দিনের দাম বাড়ার তালিকায় রয়েছে ছোলাও। রোজার পর দাম কমে ৬০ টাকায় নেমে আসা ছোলার কেজি বেড়ে ৬৫ থেকে ৭০ টাকা হয়েছে।

গত দুই দিনে এসব পণ্যের দাম বাড়ার তথ্য উঠে এসেছে সরকারি প্রতিষ্ঠান ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) প্রতিবেদনেও। টিসিটির তথ্য অনুযায়ী, ১৪ জুন চাল, মসুর ডাল, রসুন, আলু, বয়লার মুরগি ছোলার দাম বেড়েছে।

তবে প্রতিষ্ঠানটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত এক সপ্তাহে চিকন চাল, আটা, লবঙ্গ, সুপার পাম অয়েল, লুজ (খোলা) ও বোতলের সয়াবিন তেল, চিনি, পেঁয়াজ, এলাচ ও জিরার দাম কমেছে।

হঠাৎ চালের দাম বাড়ার বিষয়ে খিলগাঁওয়ের এক চাল ব্যবসায়ী বলেন, ‘নতুন চাল আসায় কিছু চালের দাম কম ছিল। তবে কয়েকদিন ধরে চাল বিক্রি বেড়েছে। এ কারণেই হয়তো দাম একটু বেশি। চালের এই টান শেষ হলে তখন হয়তো দাম একটু কমতে পারে। তবে বিক্রি স্বাভাবিক থাকলে দাম কমার সম্ভাবনা নেই।

বয়লার মুরগির দাম বাড়ার বিষয়ে রামপুরার ব্যবসায়ী জহির বলেন, ঈদের পর কয়েক দফা বয়লার মুরগি দাম কমে। তবে এখন আবার লকডাউ হবে এমন গুঞ্জন শুনছি। এতে দুদিন ধরে বিক্রি একটু বেড়েছে। সেই সঙ্গে বেড়েছে বয়লার মুরগির দাম।

আলু, ডাল, রসুনের দাম বাড়ার বিষয়ে মালিবাগের ব্যবসায়ী মো. জাহাঙ্গীর বলেন, আলুর দাম এমনিই বাড়তি। এ পরিস্থিতিতে দুই দিন ধরে মানুষ বাড়তি পরিমাণে আলু, পেঁয়াজ, রসুন, মসুর ডাল কিনছে। ফলে দাম কিছুটা বেড়েছে। কয়েক দিন ধরে শুনছি ঢাকার বিভিন্ন অঞ্চল আবার লকডাউন হবে। এ কারণেই হয়তো মানুষ বাড়তি কেনাকটা করছে।

বিজনেস আওয়ার/১৫ জুন, ২০২০/এ

ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার মতামত জানান:
ট্যাগ :

আপনার মতামত লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার মেইলে তথ্য জমা করুন

লকডাউনের গুঞ্জনে দাম বেড়েছে নিত্যপণ্যের

পোস্ট হয়েছে : ১২:২৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৫ জুন ২০২০

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে সরকার জোনভিত্তিক লকডাউনে যাচ্ছে, এমন গুঞ্জনের মধ্যেই রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে একদিনের ব্যবধানে সাতটি নিত্যপণ্যের দাম বেড়েছে।

দেশে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে টানা ৬৬ দিন লকডাউন রাখার পর গত ৩১ মে থেকে বেশিরভাগ বিধিনিধেষ তুলে নেয়া হয়। তবে এরপর প্রতিদিন করোনার সংক্রমণের সংখ্যা বাড়তে থাকায় এলাকা ধরে জোনভিত্তিক পদক্ষেপ নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার।

তবে গত দুদিন ধরে গুঞ্জন ছড়িয়েছে ঢাকার ৪৫ এলাকাকে রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। শিগগির এসব এলাকা লকডাউন করা হবে। এমন গুঞ্জনের পরিপ্রেক্ষিতে চাল, মুরগি, ডাল, আলু কেনার পরিমাণ কিছুটা বেড়েছে। যার ফলে এসব পণ্যের দামও বেড়েছে।

রাজধানীর বিভিন্ন বাজার সুত্রে জানা গেছে, সব থেকে বেশি বেড়েছে বয়লার মুরগির দাম। চলতি সপ্তাহে দফায় দফায় দাম বেড়ে বয়লার মুরগির কেজি আবার ১৭০ টাকায় উঠেছে, যা গত শুক্রবারও ছিল ১৪০ টাকা।

দাম বেড়েছে সব ধরনের চালের। মোটা চালের দাম বেড়ে কেজি ৩৮ থেকে ৪৫ টাকা বিক্রি হচ্ছে, যা দুদিন আগে ছিল ৩৪ থেকে ৩৬ টাকা। মাঝারি মানের চালের দাম বেড়ে হয়েছে ৪৫ থেকে ৫০ টাকা। চিকন চালের দাম বেড়ে কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫৬ থেকে ৬২ টাকা, যা আগে ছিল ৫৪ থেকে ৫৮ টাকার মধ্যে।

দুদিন আগে ২৬ থেকে ২৮ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া আলুর দাম বেড়ে ৩০ টাকা হয়েছে। দেশি রসুনের দাম বেড়ে কেজি আবার ১০০ টাকা ছাড়িয়েছে। কয়েক দফা দাম কমে গত সপ্তাহে দেশি রসুনের কেজি ৮০ থেকে ৯০ টাকা হয়েছিল। এখন তা আবার বেড়ে ১১০ থেকে ১২০ টাকা হয়েছে।

রসুনের সঙ্গে দাম বেড়েছে দেশি পেঁয়াজের। ৪০ টাকা থেকে দেশি পেঁয়াজের দাম বেড়ে এখন ৪৫ থেকে ৫০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। দেশি রসুনের পাশাপাশি দাম বেড়েছে আমদানি করা রসুনেরও। ১২০ থেকে ১৩০ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া আমদানি করা রসুনের দাম বেড়ে ১৪০ থেকে ১৫০ টাকা হয়েছে।

৯৫ থেকে ১০০ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া মাঝারি দানার মসুর ডালের দাম বেড়ে ১০০ থেকে ১১৫ টাকা হয়েছে। গত দুই দিনের দাম বাড়ার তালিকায় রয়েছে ছোলাও। রোজার পর দাম কমে ৬০ টাকায় নেমে আসা ছোলার কেজি বেড়ে ৬৫ থেকে ৭০ টাকা হয়েছে।

গত দুই দিনে এসব পণ্যের দাম বাড়ার তথ্য উঠে এসেছে সরকারি প্রতিষ্ঠান ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) প্রতিবেদনেও। টিসিটির তথ্য অনুযায়ী, ১৪ জুন চাল, মসুর ডাল, রসুন, আলু, বয়লার মুরগি ছোলার দাম বেড়েছে।

তবে প্রতিষ্ঠানটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত এক সপ্তাহে চিকন চাল, আটা, লবঙ্গ, সুপার পাম অয়েল, লুজ (খোলা) ও বোতলের সয়াবিন তেল, চিনি, পেঁয়াজ, এলাচ ও জিরার দাম কমেছে।

হঠাৎ চালের দাম বাড়ার বিষয়ে খিলগাঁওয়ের এক চাল ব্যবসায়ী বলেন, ‘নতুন চাল আসায় কিছু চালের দাম কম ছিল। তবে কয়েকদিন ধরে চাল বিক্রি বেড়েছে। এ কারণেই হয়তো দাম একটু বেশি। চালের এই টান শেষ হলে তখন হয়তো দাম একটু কমতে পারে। তবে বিক্রি স্বাভাবিক থাকলে দাম কমার সম্ভাবনা নেই।

বয়লার মুরগির দাম বাড়ার বিষয়ে রামপুরার ব্যবসায়ী জহির বলেন, ঈদের পর কয়েক দফা বয়লার মুরগি দাম কমে। তবে এখন আবার লকডাউ হবে এমন গুঞ্জন শুনছি। এতে দুদিন ধরে বিক্রি একটু বেড়েছে। সেই সঙ্গে বেড়েছে বয়লার মুরগির দাম।

আলু, ডাল, রসুনের দাম বাড়ার বিষয়ে মালিবাগের ব্যবসায়ী মো. জাহাঙ্গীর বলেন, আলুর দাম এমনিই বাড়তি। এ পরিস্থিতিতে দুই দিন ধরে মানুষ বাড়তি পরিমাণে আলু, পেঁয়াজ, রসুন, মসুর ডাল কিনছে। ফলে দাম কিছুটা বেড়েছে। কয়েক দিন ধরে শুনছি ঢাকার বিভিন্ন অঞ্চল আবার লকডাউন হবে। এ কারণেই হয়তো মানুষ বাড়তি কেনাকটা করছে।

বিজনেস আওয়ার/১৫ জুন, ২০২০/এ

ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার মতামত জানান: