1. [email protected] : Asim : Asim
  2. [email protected] : anis : anis
  3. [email protected] : Admin : Admin
  4. [email protected] : Nayan Babu : Nayan Babu
  5. [email protected] : Polash : Polash
  6. [email protected] : Rajowan : Rajowan
  7. [email protected] : Riyad : Riyad
  8. [email protected] : sattar miazi : sattar miazi
স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ডে অবন্টিত লভ্যাংশের ২৬০ কোটি টাকা জমা
শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:৪০ পূর্বাহ্ন

স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ডে অবন্টিত লভ্যাংশের ২৬০ কোটি টাকা জমা

  • পোস্ট হয়েছে : মঙ্গলবার, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত বিভিন্ন কোম্পানি তাদের অবন্টিত লভ্যাংশের ২৬০ কোটি টাকা ক্যাপিটাল মার্কেট স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ডে (সিএমএসএফ) জমা দিয়েছে। গত ১৩ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এই অর্থ ফান্ডে জমা হয়েছে। তবে এ অর্থ ফান্ডে স্থানান্তরে নির্ধারিত সময় শেষ হয়ে গেলেও অনেক কোম্পানি থেকে এখনো জমা দেওয়া হচ্ছে।

যদিও শেয়ারবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) এই লভ্যাংশ জমা দেওয়ার জন্য গত ৩০ আগস্ট পর্যন্ত সময় বেধেঁ দিয়েছিল।

এ বিষয়ে গত ১১ আগস্ট বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব পাবলিকলি লিস্টেড কোম্পানিজের (বিএপিএলসি) পক্ষ থেকে সময় বাড়ানোর আবেদন করা হয়েছিল। কিন্তু ২৫ আগস্ট বিএসইসির পক্ষ থেকে তা নাখোঁজ করে দেওয়া হয়।

বিএসইসি সূত্রে জানা গেছে, কোম্পানিগুলো ২৬০ কোটি টাকা জমা দিলেও ৩৩৫ কোম্পানির আছে অন্টিত নগদ লভ্যাংশ ছিল প্রায় ৯৫৮ কোটি টাকা। তবে স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ডে জমা দেওয়ার নির্দেশনার পরে অনেক কোম্পানি তাদের শেয়ারহোল্ডারদের মধ্যে তা বিতরন করেছে। ফলে অন্টিত লভ্যাংশের পরিমাণ কমে এসেছে।

তাই পূণ:রায় যাচাই করা ছাড়া বর্তমানে প্রকৃত অবন্টিত লভ্যাংশের পরিমাণ বলা কঠিন। এ বিষয়ে পূণ:রায় যাচাই করা হবে।

বিএসইসির অনুসন্ধানে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত বিভিন্ন কোম্পানিতে শেয়ারহোল্ডারদের অদাবিকৃত ২১ হাজার কোটি টাকার লভ্যাংশ পড়ে থাকার বিষয়টি উঠে আসে। এই লভ্যাংশ পড়ে থাকার কারন হিসেবে রয়েছে- শেয়ারহোল্ডারদের ঠিকানা না পাওয়া, ওয়ারিশ নিয়ে জটিলতাসহ ইত্যাদি। এই পরিস্থিতিতে ওই পড়ে থাকা লভ্যাংশকে শেয়ারবাজারের উন্নয়নে ব্যবহারের উদ্যোগ নেয় নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

যেসব প্রতিষ্ঠানের কাছে শেয়ারহোল্ডারদের ৩ বছরের অধিক সময় ধরে অর্থ-শেয়ার, নন রিফান্ডেড পাবলিক সাবস্ক্রিপশনের অর্থ রয়েছে, সেগুলো স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ডে স্থানান্তর করার নির্দেশ দেওয়া হয়। লভ্যাংশ ঘোষণা বা অনুমোদনের দিন বা রেকর্ড ডেট থেকে তিন বছর হিসাবে পড়ে থাকা অর্থ তহবিলে জমা দিতে হবে।

এই ফান্ড পরিচালনা বা ব্যবহারের জন্য গত ২২ আগস্ট প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক মুখ্য সচিব ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান নজিবুর রহমানকে প্রধান করে ১০ সদস্যের পর্ষদ অনুমোদন দিয়েছে বিএসইসি।

অন্য সদস্যরা হলেন- বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক মো. সাইফুর রহমান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফাইন্যান্স বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক শেখ তানজিলা দ্বীপ্তি, ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্ত, ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জর (ডিএসই) ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. তারিক আমিন ভুঁইয়া, চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) চেয়ারম্যান আসিফ ইব্রাহিম, সেন্ট্রাল ডিপোজিটরি বাংলাদেশ লিমিটেডের (সিডিবিএল) স্বতন্ত্র পরিচালক এ কে এম নুরুল ফজলে বাবুল, সেন্ট্রাল কাউন্টারপার্টি বাংলাদেশ লিমিটেডের (সিসিবিএল) পরিচালক ড. মোহাম্মদ তারেক, বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব পাবলিকলি লিস্টেড কোম্পানিজের (বিএপিএলসি) সভাপতি আজম জে চৌধুরী, দি ইন্সটিটিউট অব কস্ট অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট অ্যাকাউন্টেন্টস অব বাংলাদেশের (আইসিএমএবি) সদস্য এ কে এম দেলোয়ার হোসেন। এছাড়া এ ফান্ড ব্যবস্থাপনার জন্য একজন চিফ অব অপারেশন (সিওও) পদে একজনকে মনোনয় দেবে বিএসইসি।

বিজনেস আওয়ার/১৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১/এস

ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার মতামত জানান:

শেয়ার দিয়ে সবাইকে দেখার সুযোগ করে দিন

এ বিভাগের আরো সংবাদ
lanka-bangla-ibroker-businesshour24

নেপাল গেলেন তামিম

  • ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১
  • ব্র্যাক ব্যাংকে চাকরি

  • ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১