ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

১৯ দিনে রেমিট্যান্স এসেছে প্রায় ৯ হাজার কোটি টাকা

  • পোস্ট হয়েছে : ০১:৪৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২১ মে ২০২০
  • 96

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদকঃ মহামারি করোনাভাইরাসের এ সংকটময় মুহূর্তেও রেমিট্যান্স পালে হাওয়া লেগেছে। ঈদ সামনে রেখে আত্মীয়-স্বজনদের জন্য দেশে অর্থ পাঠাচ্ছে প্রবাসী বাংলাদেশিরা। চলতি মে মাসের প্রথম ১৯ দিনে রেমিট্যান্স এসেছে ১০৯ কোটি ১০ লাখ ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ প্রায় ৯ হাজার ৩০০ কোটি টাকা)। যা গত মাস এপ্রিলের চেয়ে বেশি। এপ্রিলে ১০৮ কোটি ১০ লাখ ডলারের রেমিট্যান্স পাঠিয়েছিলেন প্রবাসীরা।

বুধবার (২০ মে) কেন্দ্রীয় ব্যাংক সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, করোনার প্রভাবে রেমিট্যান্স আহরণের প্রধান দেশগুলোতে গত তিন মাস ধরে অচলাবস্থা। কাজ নেই, অনেকে ঘর থেকেও বের হতে পারছে না। বেশিরভাগ দেশে সব ধরনের প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় প্রবাসীরা চাইলেও দেশে রেমিট্যান্স পাঠাতে পারেননি। যার কারণে গত দুই মাস রেমিট্যান্সের প্রভাব কমেছে। তবে আস্তে আস্তে এখন বিশ্ব পরিস্থিতি উন্নত হচ্ছে। অনেক দেশে স্বাভাবিক হচ্ছে। ব্যবসা-বাণিজ্য চালু করছে। তাই ঈদের সামনে আবারও রেমিট্যান্স পাঠানো শুরু করেছেন প্রবাসীরা।

এদিকে প্রতি বছরই ঈদের আগে দেশে রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়ে। গত বছরের ঈদের আগে মে মাসে ১৭৪ কোটি ৮২ লাখ ডলারের রেকর্ড পরিমাণ রেমিট্যান্স পাঠিয়েছিলেন প্রবাসীরা। ওই সময়ে মে’র প্রথম ১৯ দিনে পাঠিয়েছিল ১০৯ কোটি ৪০ লাখ ডলার।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য বলছে, করোনার প্রার্দুভাবের সময়ে আগের মাস এপ্রিলে প্রবাসী বাংলাদেশিরা ব্যাংকিং চ্যানেলে ১০৮ কোটি ১০ লাখ ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছিলেন। যা গত ৩০ মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন। এর আগে গত ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বর মাসে ৮৫ কোটি ৬৮ লাখ ডলার দেশে পাঠিয়েছিলেন প্রবাসীরা।

এদিকে চলতি বছরের এপ্রিলে পাঠানো রেমিট্যান্স আগের বছরের এপ্রিল মাসের চেয়ে ৩৫ কোটি ডলার বা ২৪ দশমিক ৬৩ শতাংশ কম। গত বছর একই সময়ে দেশে রেমিট্যান্স এসেছিল ১৪৩ কোটি ৪৩ লাখ ডলার। এপ্রিলের আগের মাস মার্চে ১২৮ কোটি ৬৮ লাখ ডলারের রেমিট্যান্স এসেছিল, যা গত বছরের মার্চ মাসের চেয়ে ১৩ দশমিক ৩৪ শতাংশ কম।

এদিকে রেমিট্যান্সে সরকার ঘোষিত ২ শতাংশ প্রণোদনা সহজে যেন পান সেই জন্য বেশ কিছু শর্ত শিথিল করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এতদিন দেড় লাখ টাকা পর্যন্ত রেমিট্যান্সের প্রণোদনায় কোনো ধরনের কাগজপত্র লাগত না। এর আওতা বাড়িয়েছে। গত ১ জুলাই থেকে প্রবাসীদের পাঠানো পাঁচ হাজার মার্কিন ডলার বা পাঁচ লাখ টাকা পর্যন্ত রেমিট্যান্সে বিনা শর্তে কোনো ধরনের কাগজপত্র ছাড়াই প্রণোদনার অর্থ প্রদান করা হবে। পাশাপাশি পাঁচ লাখ টাকার ওপরে কাগজপত্র জমা দেয়ার সময় বাড়ানো হয়েছে। এতদিন প্রণোদনা পেতে হলে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স প্রাপক ওঠানোর ১৫ দিনের মধ্যে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিতে হতো। এখন তা বাড়িয়ে দুই মাস করা হয়েছে।

বিজনেস আওয়ার/ ২১ মে,২০২০/ কমা

ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার মতামত জানান:
ট্যাগ :

আপনার মতামত লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার মেইলে তথ্য জমা করুন

১৯ দিনে রেমিট্যান্স এসেছে প্রায় ৯ হাজার কোটি টাকা

পোস্ট হয়েছে : ০১:৪৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২১ মে ২০২০

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদকঃ মহামারি করোনাভাইরাসের এ সংকটময় মুহূর্তেও রেমিট্যান্স পালে হাওয়া লেগেছে। ঈদ সামনে রেখে আত্মীয়-স্বজনদের জন্য দেশে অর্থ পাঠাচ্ছে প্রবাসী বাংলাদেশিরা। চলতি মে মাসের প্রথম ১৯ দিনে রেমিট্যান্স এসেছে ১০৯ কোটি ১০ লাখ ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ প্রায় ৯ হাজার ৩০০ কোটি টাকা)। যা গত মাস এপ্রিলের চেয়ে বেশি। এপ্রিলে ১০৮ কোটি ১০ লাখ ডলারের রেমিট্যান্স পাঠিয়েছিলেন প্রবাসীরা।

বুধবার (২০ মে) কেন্দ্রীয় ব্যাংক সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, করোনার প্রভাবে রেমিট্যান্স আহরণের প্রধান দেশগুলোতে গত তিন মাস ধরে অচলাবস্থা। কাজ নেই, অনেকে ঘর থেকেও বের হতে পারছে না। বেশিরভাগ দেশে সব ধরনের প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় প্রবাসীরা চাইলেও দেশে রেমিট্যান্স পাঠাতে পারেননি। যার কারণে গত দুই মাস রেমিট্যান্সের প্রভাব কমেছে। তবে আস্তে আস্তে এখন বিশ্ব পরিস্থিতি উন্নত হচ্ছে। অনেক দেশে স্বাভাবিক হচ্ছে। ব্যবসা-বাণিজ্য চালু করছে। তাই ঈদের সামনে আবারও রেমিট্যান্স পাঠানো শুরু করেছেন প্রবাসীরা।

এদিকে প্রতি বছরই ঈদের আগে দেশে রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়ে। গত বছরের ঈদের আগে মে মাসে ১৭৪ কোটি ৮২ লাখ ডলারের রেকর্ড পরিমাণ রেমিট্যান্স পাঠিয়েছিলেন প্রবাসীরা। ওই সময়ে মে’র প্রথম ১৯ দিনে পাঠিয়েছিল ১০৯ কোটি ৪০ লাখ ডলার।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য বলছে, করোনার প্রার্দুভাবের সময়ে আগের মাস এপ্রিলে প্রবাসী বাংলাদেশিরা ব্যাংকিং চ্যানেলে ১০৮ কোটি ১০ লাখ ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছিলেন। যা গত ৩০ মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন। এর আগে গত ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বর মাসে ৮৫ কোটি ৬৮ লাখ ডলার দেশে পাঠিয়েছিলেন প্রবাসীরা।

এদিকে চলতি বছরের এপ্রিলে পাঠানো রেমিট্যান্স আগের বছরের এপ্রিল মাসের চেয়ে ৩৫ কোটি ডলার বা ২৪ দশমিক ৬৩ শতাংশ কম। গত বছর একই সময়ে দেশে রেমিট্যান্স এসেছিল ১৪৩ কোটি ৪৩ লাখ ডলার। এপ্রিলের আগের মাস মার্চে ১২৮ কোটি ৬৮ লাখ ডলারের রেমিট্যান্স এসেছিল, যা গত বছরের মার্চ মাসের চেয়ে ১৩ দশমিক ৩৪ শতাংশ কম।

এদিকে রেমিট্যান্সে সরকার ঘোষিত ২ শতাংশ প্রণোদনা সহজে যেন পান সেই জন্য বেশ কিছু শর্ত শিথিল করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এতদিন দেড় লাখ টাকা পর্যন্ত রেমিট্যান্সের প্রণোদনায় কোনো ধরনের কাগজপত্র লাগত না। এর আওতা বাড়িয়েছে। গত ১ জুলাই থেকে প্রবাসীদের পাঠানো পাঁচ হাজার মার্কিন ডলার বা পাঁচ লাখ টাকা পর্যন্ত রেমিট্যান্সে বিনা শর্তে কোনো ধরনের কাগজপত্র ছাড়াই প্রণোদনার অর্থ প্রদান করা হবে। পাশাপাশি পাঁচ লাখ টাকার ওপরে কাগজপত্র জমা দেয়ার সময় বাড়ানো হয়েছে। এতদিন প্রণোদনা পেতে হলে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স প্রাপক ওঠানোর ১৫ দিনের মধ্যে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিতে হতো। এখন তা বাড়িয়ে দুই মাস করা হয়েছে।

বিজনেস আওয়ার/ ২১ মে,২০২০/ কমা

ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার মতামত জানান: