1. [email protected] : anjuman : anjuman
  2. [email protected] : bikash halder : bikash halder
  3. [email protected] : Admin : Admin
  4. [email protected] : Nayan Babu : Nayan Babu
ভারী শিল্প কাজে ব্যবহৃত অক্সিজেনে চলে হাসপাতালের সেবা
বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০২:৩২ পূর্বাহ্ন

ভারী শিল্প কাজে ব্যবহৃত অক্সিজেনে চলে হাসপাতালের সেবা

  • পোস্ট হয়েছে : বৃহস্পতিবার, ২৫ মে, ২০২৩
print sharing button

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক: মুমূর্ষু রোগীর জীবন বাঁচতে অক্সিজেন অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। কিন্তু লোহা কাটাসহ ভারী শিল্পে ব্যবহৃত অক্সিজেন যদি রোগীর জন্য ব্যবহার হয়, তাহলে সেটা অবশ্যই ক্ষতিকর ও জীবনের জন্য হুমকি। এমন ঘটনা ঘটেছে খুলনার বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতালে। দুটি হাসপাতালে রোগীদের সরবরাহ করা হয়েছে লোহা কাটার কাজে ব্যবহৃত অক্সিজেন।

অক্সিজেন উৎপাদন ও বাজারজাতকরণের কোনো লাইসেন্স না থাকা সত্ত্বেও একটি প্রতিষ্ঠান থেকে অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়েছে খুলনার রাশিদা মেমরিয়াল হাসপাতাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক এবং লাইফ কেয়ার ডায়াগনস্টিক সেন্টার অ্যান্ড হাসপাতাল।

বুধবার (২৪ মে) দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) এর খুলনা সমন্বিত জেলা কার্যালয় থেকে এমন অভিযান চালানো হয়েছে। অভিযানে এ অভিযোগের সত্যতা মিলেছে। অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় তাৎক্ষণিকভাবে নির্বাহী ম্যাজিস্টেটের উপস্থিতিতে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে।

দুদকের সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ শফিউল্লাহ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, শিল্পকারখানায় লোহা কাটাসহ ভারী কাজে ব্যবহৃত অক্সিজেন খুলনার বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতালে রোগীদের সরবরাহের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে এ অভিযান চালানো হয়। অভিযানে ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের প্রতিনিধি হিসেবে ওষুধ পরিদর্শক, বিস্ফোরক পরিদপ্তরের প্রতিনিধি হিসেবে সহকারী বিস্ফোরক পরিদর্শক ও সিভিল সার্জনের প্রতিনিধি হিসেবে একজন চিকিৎসক উপস্থিত ছিলেন।

দুদক সূত্রে জানা যায়, অভিযানে অনুমোদিত দুটি হাসপাতালে লিন্ডে বিডি ও স্পেক্ট্রা কোম্পানির সিলিন্ডার পাওয়া যায়। কিন্তু মার্চের আগে কোন প্রতিষ্ঠান থেকে হাসপাতাল দুটি অক্সিজেন সিলিন্ডার ক্রয় করত তার ক্রয় রসিদ দেখাতে ব্যর্থ হয়। পরে অননুমোদিত অক্সিজেন সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান রকি অক্সিজেনে অভিযান চালানো হয়। ওই প্রতিষ্ঠানে মেডিকেল অক্সিজেন উৎপাদন ও বাজারজাতকরণের কোনো লাইসেন্স না থাকা সত্ত্বেও অভিযানকালে সেখানে শিল্পকারখানায় ব্যবহৃত গ্যাসের পাশাপাশি লিন্ডে বিডি ও স্পেক্ট্রা কোম্পানির সিল সম্বলিত মেডিকেল কাজে ব্যবহৃত অক্সিজেন গ্যাসের অনুরূপ সিলিন্ডার পাওয়া যায়। যার পাঁচটিতে গ্যাস ভর্তি ছিল ও ৩০টি সিলিন্ডার খালি ছিল। প্রতিষ্ঠানটি মেডিকেল অক্সিজেন গ্যাস উৎপাদনের অনুমোদনের স্বপক্ষে কোনো প্রকার রেকর্ডপত্র দেখাতে ব্যর্থ হয়।

দুদক আরও জানায়, অনুমোদনহীন প্রতিষ্ঠান পরিচালনার অপরাধে তাৎক্ষণিকভাবে নির্বাহী ম্যাজিস্টেটের উপস্থিতিতে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানের মালিক খুরশিদ আলমকে ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা অর্থ দণ্ড অনাদায়ে ১৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয়। পাশাপাশি প্রতিষ্ঠানটি সিলগালা করা হয়। এ বিষয়ে কমিশনের অনুমোদনক্রমে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানা গেছে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, ‘মেডিক্যাল অক্সিজেনের মধ্যে কার্বন ডাই অক্সাইড, কার্বন মনোক্সাইড ও পানির মিশ্রণের মাত্রা একেবারে কম বিধায় তা শরীরের জন্য সহনীয়। অন্যদিকে ইন্ডাস্ট্রিয়াল অক্সিজেনে বিশুদ্ধতার মাত্রা অনেক কম থাকে। অক্সিজেনের সঙ্গে মিশ্রিত বিভিন্ন ধরনের গ্যাস শরীরের রক্ত, ফুসফুস ও ব্রেইনসহ বিভিন্ন কোষকে ধীরে ধীরে ক্ষতিগ্রস্ত করে। তাই ইন্ডাস্ট্রিয়াল অক্সিজেন স্বাস্থ্যের জন্য চরম ঝুঁকিপূর্ণ।’

বিজনেস আওয়ার/২৫ মে, ২০২৩/এএইচএ

ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার মতামত জানান:

শেয়ার দিয়ে সবাইকে দেখার সুযোগ করে দিন

এ বিভাগের আরো সংবাদ

হঠাৎ সৌদি সফরে জেলেনস্কি

  • ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪